সাঈদীর মুক্তিকে জড়িয়ে আল্লামা বাবুনগরীর বিরুদ্ধে রিপোর্ট, হেফাজতের হুঁশিয়ারি


বিশেষ প্রতিবেদক: গতকাল ১২ মে দুপুরে বাংলাদেশের দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে রকি বড়ুয়া নামে এক ব্যক্তি গ্রেপ্তার হওয়ার খবর প্রকাশ করা হয়। ‘সাঈদী পুত্রের সাথে বৈঠক করা বিতর্কিত সেই রকি বড়ুয়া গ্রেফতার’ শিরোনামের ওই খবরের একটি অংশে বলা হয়-


【‘জানা যায়, এসময় রকি বড়ুয়ার আরও চার সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার করা হয় বাংলাদেশ ও ভারতের রাজনৈতিক নেতা, মন্ত্রী-এমপিসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে তার অসংখ্য ছবি, তাদের সিল, প্যাড এবং সাঈদীপুত্র মাসুদ সাঈদী, তারেক মনোয়ার ছাড়াও হেফাজতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মহাসচিব জুনাইদ বাবুনগরীর সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের ছবি।’】

সংবাদটিতে আল্লামা বাবুনগরীকে জড়ানোয় বিবৃতি দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের একাধিক নেতা। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী এক বিবৃতিতে বলেন, সম্প্রতি কিছু অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়া নানা কল্পকাহিনী তৈরী করে, মিথ্যা ও ভিত্তিহীন রিপোর্ট সাজিয়ে দেশের শীর্ষ আলেম, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব, প্রখ্যাত শায়খুল হাদীস, দারুল উলুম হাটহাজারীর মুঈনে মুহতামিম আল্লামা শায়খ জুনাইদ বাবুনগরীকে বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ করার গভীর ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে।

বস্তুনিষ্ঠ রিপোর্ট করে সংবাদ প্রচার করা একজন সাংবাদিকের নৈতিক দায়িত্ব। অথচ আমরা লক্ষ্য করছি যে, কতিপয় সংবাদকর্মী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে একটি কুচক্রীমহলের ইন্ধনে কোন ধরণের সত্যতা যাছাই না করে হেফাজত মহাসচিবের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক রিপোর্ট করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার চক্রান্ত করে যাচ্ছে।

মাওলানা ইসলামাবাদী আরো বলেন, আজ ১৩ মে বুধবার বাংলাদেশ প্রতিদিনের অনলাইন সংস্করণে “সাঈদীর পুত্রের সাথে বৈঠক করা বিতর্কিত সেই রকি বড়ুয়া গ্রেফতার” শীর্ষক খবরে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের যে অংশ জড়িয়ে দিয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন ও বিভ্রান্তিকর।

【আমরা এই মিথ্যা রিপোর্টের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। মাসুদ সাঈদী নামে কারো সাথে আল্লামা বাবুনগরীর পরিচয়ও নেই। রকি বড়ুয়া নামক একজন র’এর এজেন্টের সাথে দেশের সর্বজন শ্রদ্বেয় আপোষহীন সংগ্রামী মুরুব্বি আলেম আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীকে জড়ানো চরম অন্যায় ও মানহানিকর।】

তিনি বলেন, এই মিথ্যা রিপোর্ট করে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীকে বিতর্কিত করার চক্রান্ত করায় অবিলম্বে বাংলাদেশ প্রতিদিন কর্তৃপক্ষকে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় বাংলাদেশ প্রতিদিনের বিরুদ্ধে মানহানি মামলাসহ দেশের তৌহিদী জনতা দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে বলেও হুশিয়ারী করেন তিনি।

Post a Comment

[blogger]

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget