Articles by "ইসলাম"

wj‡L‡Qb: gvIjvbv Avkivd Avjx wbRvgcyix

(kvBLyj Bmjvg Avjøvgv kvn Avng` kdx in. Ggb GKwU BwZnvm, hv evievi Av‡m bv| K‡qKhyM wgwj‡q GKeviB Av‡m| Avgiv Zvu‡K Rvb‡Z PvB, eyS‡Z PvB Ges Zvui Rxeb †_‡K wKQz mÂq K‡i wb‡RivI Av‡jvwKZ n‡Z PvB| Avgv‡`i‡K †mB gnvmy‡hvMwUB K‡i w`‡q‡Qb `viæj Djyg nvUnvRvixi wmwbqi D¯Ív`, †jLK I M‡elK gvIjvbv Avkivd Avjx wbRvgcyix nvwd.| Ñm¤úv`K)

 

Rb¥ I †e‡o IVv

Avjøvgv kvn Avng` kdx| 1930 wLÖ÷vã †gvZv‡eK 1351 wnRix‡Z evi AvDwjqvi c~Y¨f‚wg L¨vZ PÆMÖvg †Rjvi iv½ywbqv _vbvaxb cvwLqvi wUjv bvgK MÖv‡g wcZv eiKZ Avjx I gvZv †gvQv¤§vr †g‡niæ‡bœQv †eM‡gi Ji‡m GK m¤£všÍ `xb`vi cwiev‡i GB gnvgbxlx Rb¥MÖnY K‡ib|

wcZv-gvZvi ¯^cœ wQj Av`y‡i mšÍvb‡K D¤§‡Z gynv¤§v`xi aviK-evnK wn‡m‡e M‡o Zzj‡eb| gnvb Avjøvn ZvAvjv wcZv-gvZv‡K wbivk K‡ibwb| Keyj K‡i‡Qb D¤§vni hyM‡kÖô ivnevi wn‡m‡e| nhi‡Zi wcZv wkï Avng` kdx‡K cÖv_wgKfv‡e KziAvb wk¶vi Rb¨ †gŠjfx AvwRRyi ingvb in. Gi Kv‡Q †cÖiY K‡ib| mv‡_ mv‡_ wkï Avng` kdx PZz_© †kÖYx ch©šÍ mvaviY wk¶vI jvf K‡ib| Zvici midfvUv gv`ivmvq cÖv_wgK wKZve cv‡V g‡bvwb‡ek K‡ib|

Avjøvgv kvn Avng` kdx †QvU‡ejv †_‡KB AZ¨šÍ b¤ª-f`ª, webqx, wPšÍvkxj, cÖLi †gav I Zxÿè eyw×i AwaKvix wQ‡jb| Lye Aí mg‡qi e¨eav‡b cweÎ KziAv‡bi weï× wZjvIqvZ I cÖv_wgK wk¶vq K…wZZ¡ AR©b K‡ib| Zvici cÖwZfvevb GB wK‡kvi Ávb Avni‡Yi A`g¨ ¯ú„nv wb‡q Qz‡U hvb PÆMÖv‡gi HwZn¨evnx wRwi gv`ivmvq| †mLv‡b 5/6 gvm Aa¨qb K‡ib| Gici e„wUk I Rvg©vwbi hy× `vgvgv †e‡R IVvq wZwb 1361 wnRix‡Z Rbve nv‡dR BgwZqvR mv‡n‡ei cÖ‡Póvq fwZ© nb Gwkqv gnv‡`‡ki wØZxq e„nËg `xwb cÖwZôvb `viæj Djyg gyCbyj Bmjvg nvUnvRvix gv`ivmvq| ZLb nhi‡Zi eqm gvÎ 10 eQi|

wZwb `viæj Djyg nvUnvRvix‡Z cig AvZ¥Z¨vM I †Lv`vcÖ`Ë †gav, m`vPvi I †jLvcovq GKvMÖZv cÖf…wZ ¸Yvejxi gva¨‡g GKvav‡i 10 eQi AwZµg K‡ib| mv‡_ mv‡_ hyM‡kÖô AvmvwZhv‡q †Kiv‡gi fvjevmv Ges cÖZ¨¶ ZË¡veav‡b AZ¨šÍ K…wZ‡Z¡i mv‡_ D`©©y, dvwm©, Aviwe mvwnZ¨, Bj‡g bvû, Bj‡g mid, Bj‡g wdKn, gvbwZK (hyw³we`¨v), dvjmvdv (`k©bwe`¨v) I evjvMjvZ (Aj¼viwe`¨v) BZ¨vw` wel‡q ey¨rcwË AR©b K‡ib|

Avjøvgv Avng` kdxi evj¨wkÿv, cÖv_wgK I D”PZi wk¶vi ¯Íi¸‡jv wQj LyeB Awfbe I PvÂj¨Ki NUbvq ficyi|

†`Ie‡›` Avjøvgv Avng` kdx

nvUnvRvix gv`ivmvq wgkKvZ, RvjvjvBb I Kvwh †gveviK BZ¨vw` wKZve †kl K‡ib| Gici mKj cÖwZK‚jZv I cÖwZeÜKZvi cvnvo wWwO‡q mZ¨ b¨v‡qi Drm mÜv‡b e¨vKzj n‡q I‡Vb wZwb| d‡j Bj‡g nvw`m I Bj‡g Zvdwm‡ii D”PZi wk¶v jv‡fi A`g¨ AvMÖn wb‡q 1371 wnRix‡Z Qz‡U hvb Gwkqv gnv‡`‡ki †kÖôZg `xwb wk¶v‡K›`ª fvi‡Zi `viæj Djyg †`Ie‡›`| †mLv‡b wZwb `vIiv‡q nvw`m (gv÷vm©) Ges D”PZi Zvdwmikv‡¯¿i Dci cvwÐZ¨ AR©b K‡ib|

†`Ie‡›` _vKve¯’vq wZwb eû eyRy‡M©i mvwbœ‡a¨ wb‡Ri Cgvb-Avg‡ji Dci †gnby K‡ib| Zvu‡`i g‡a¨ D‡jøL‡hvM¨Ñ kvqLyj Avie Iqvj Avhg AvIjv‡` ivmyj mv., hyM‡kÖô I wek¦e‡iY¨ gynvwÏm, Ávb I †Lv`vfxwZ‡Z myD”P gh©v`vi AwaKvix, e„wUk‡L`vI Av‡›`vj‡bi AKz‡Zvfq wmcvnmvjvi gvIjvbv ûmvBb Avng` gv`vbx in.| Avjøvgv kvn Avng` kdx †`Ie‡›` Aa¨qbiZ Ae¯’v‡ZB Zvui evBAvZ MÖnY I Pvi ZwiKvi Dci †LjvdZcÖvß nIqvi †mŠfvM¨ jvf K‡ib| wZwb `viæj Djyg †`Ie‡›` gvIjvbv Beivnxg ewjqvex in., gvIjvbv dLiæj nvmvb in., kvBLyj Av`e gvIjvbv GRvh Avjx in., gvIjvbv †gveviK in., gvIjvbv Rwniæj nvmvb in. I gvIjvbv Rwjj Avng` in. cÖgyL wek¦e‡iY¨ Djvgv‡q †Kiv‡gi KvQ †_‡K ÁvbvR©b K‡ib|

Bjg-Avgj I Ava¨vwZ¥KZvq ab¨ GB gbxlx GKvav‡i 4 eQi Aa¨qb I hyM‡kÖô Av‡jg‡`i mvwbœ‡a¨ †_‡K KziAvb-nvw`m, Zvdwmi I wdKvnkv¯¿mn ¸iæZ¡c‚Y© wel‡q ey¨rcwË AR©b K‡i hy‡Mi Ab¨Zg ivnevi nhiZ gv`vbx in. Gi Bjgx I Avgjx cÖwZwbwa n‡q ¯^‡`‡k cÖZ¨veZ©b K‡ib|

†`‡k wd‡i wZwb Zvui wcÖq D¯Ív` nvUnvRvix gv`ivmvi ZrKvjxb cwiPvjK Avjøvgv Avãyj Iqvnnve in. Gi mv‡_ mv¶vZ Ki‡j wZwb Zvui Ávb, cÖÁv, cvwÐZ¨c~Y© `„wófw½, PwiÎgvayix, DrK…ó †evakw³, mZZv, D`©viZv, AvZ¥Z¨vM, BLjvm I `vwqZ¡ m‡PZbZv; m‡e©vcwi Bj‡gi MfxiZv Ae‡jvKb K‡i we‡gvwnZ n‡q hvb| djkÖæwZ‡Z `viæj Djyg nvUnvRvix‡Z Zvu‡K wk¶K c‡` wb‡qvM †`b| Zvui kÖæwZgayi, cÖvÄj I mij fvlvq Aa¨vcbvi mybvg-myL¨vwZ Lye `ªæZ Qwo‡q c‡o me©Î| Zvui GB mybvg-myL¨vwZ ï‡b cÖZ¨šÍ AÂj †_‡K kZkZ Ávbwccvmy c½cv‡ji gZ Qz‡U Av‡m Zvui Ávb-fvÐvi I Áv‡bi Mfxi mgy`Ö †_‡K Z…òv wbevi‡Yi Rb¨| beex Av`‡k©i cÖwZ”Qwe e‡jB Avmgvbx †R¨vwZi wKiY AR©b K‡i ZvhwKiv‡q bdm ev AvZ¥ïw×i DrKl© mva‡bi j‡¶¨ cÖZ¨šÍ AÂj †_‡K AvRI nvRvi nvRvi mZ¨mÜvbxiv Qz‡U Avm‡Q `‡j `‡j|

`viæj Djyg nvUnvRvixi gynZvwg‡gi `vwq‡Z¡

1407 wnRix‡Z Z`vbxšÍb Rvwgqvi cwiPvjK Avjøvgv K¡vix nv‡g` in. ci‡jvK Mgb Ki‡j Rvwgqvi gRwj‡m ïivi me©m¤§wZµ‡g Rvwgqv cwiPvjbvi ¸iæ`vwqZ¡ Ac©Y Kiv nq eZ©gvb mg‡qi jÿ jÿ gvby‡li ü`‡qi ¯ú›`b, kvBLyj nvw`m Avjøvgv kvn Avng` kdx nvwdhvûjøvni Dci| `vwqZ¡ Awc©Z nIqvi ci †_‡KB AZ¨šÍ mybvg I `¶Zvi mv‡_ Rvwgqvi A_©‰bwZK-cÖkvmwbK I QvÎ-wk¶K‡`i Bjgx-Avgjx my›`i cwi‡ek ˆZixmn me©‡¶‡ÎB DbœwZ mvab K‡i P‡j‡Qb wZwb| ïay nvUnvRvix gv`ivmvB bq, mviv‡`‡ki AmsL¨ gv`ivmv-gmwR`I `vwqZ¡kxjZvi mv‡_ cwiPvjbv K‡i Avm‡Qb| GQvovI mw¤§wjZ KIwg gv`ivmv wk¶v‡evW© Avj-nvBAvZzj Djqv wjj-RvwgÕAvwZj KIwgqv evsjv‡`‡ki mfvcwZ Ges evsjv‡`k KIgx gv`ivmv wk¶v‡evW© (†edvK) Gi †Pqvig¨v‡bi ¸iæ`vwqZ¡ AvÄvg w`‡q Avm‡Qb wZwb|

Zvui mdj D‡`¨vM I cÖ‡Póvq `viæj Djyg nvUnvRvixi bwRiwenxb m¤cÖmviY I ms¯‹v‡ii KvR n‡q‡Q| Zvui mg‡qB Qv·`i Avevmb-msKU wbimbK‡í K‡qKwU AvevwmK QvÎvevm wbg©vY Kiv n‡q‡Q| GKK_vq nhi‡Zi gva¨‡gB Rvwgqvi Dbœqb I AMÖMwZ‡Z e¨vcK DbœwZ n‡q‡Q| GQvov 1995 wLÖ÷v‡ã Zvui my`¶ cwiPvjbvq Rvwgqv cÖwZôvi kZel©c‚wZ© Dcj‡¶¨ ÔkZevwl©Kx `¯Íview›` gnvm‡¤§jbÕ mdjfv‡e AbywôZ n‡q‡Q|

D³ m‡¤§j‡b †`k-we‡`‡ki cÖw_Zhkv Djvgv‡q †Kivg I Bmjvwg †bZ…e„›` AskMÖnY K‡ib| m‡¤§j‡b Rvwgqvi cÖvq 10 mnmÖvwaK dzhvjv‡q †Kivg‡K `¯Ív‡i dwhjZ cÖ`vb Kiv nq| D³ kZevwl©Kx gnvm‡¤§jb-cieZ©x 2002 wLÖ÷v‡ã Zvui ZË¡veav‡b mdjfv‡e AbywôZ nq Ômßevwl©Kx `¯Íview›` gnvm‡¤§jbÕ| G m‡¤§jbI mdjfv‡e AbywôZ nq Ges me©Î e¨vcK cÖksmv jvf K‡i| Rvwgqvi `vIiv‡q nvw`m (gv÷vm©) K¬v‡mi dzhvjv‡q †Kiv‡gi msL¨v DˇivËi e„w× nIqv‡Z mßevwl©Kx gnvm‡¤§j‡bi ci †_‡K wb‡q cÖwZ eQi evwl©K gvnwd‡ji mv‡_ nhi‡Zi ZË¡veav‡b `¯Ívie›`x m‡¤§jbI AbywôZ n‡q Avm‡Q| eZ©gv‡b cÖwZ eQi cÖvq wZbnvRvi QvÎ `vIiv‡q nvw`m mgvß K‡i `x‡bi gkvj wb‡q we‡k¦i Avbv‡P-Kvbv‡P Qwo‡q co‡Q| GQvovI nhi‡Zi HKvwšÍK cÖ‡Póv I AvMÖ‡n `viæj Djy‡gi wk¶vwefv‡M D”PZi †KivZ-ZvRwe` wefvM, Zvnwdhyj KziAvb wefvM, D”PZi nvw`m M‡elYv wefvM, Aviwe mvwnZ¨ wefvM, Av` `vIqvn Iqvj Bikv` wefvM, evsjv fvlv I mvwnZ¨ wefvM I Kw¤úDUvi wefvM Pvjy i‡q‡Q| nhiZ `vwqZ¡ MÖn‡Yi ci †_‡K gvwmK gyCbyj Bmjv‡gi wbqwgZ cÖKvkbv, d‡Zvqv‡q `viæj Djyg I wdKwn cÖeÜ Ô`imyj wdKnÕ BZ¨vw` cÖKvk n‡q‡Q| i‡q‡Q gvRwjmy wdK¡wnj Bmjvgx I mvßvwnK mvwnZ¨ gRwjm|

nhi‡Zi cwiPvjbvq Rvwgqvi mvd‡j¨i wdwiw¯Í GZ ¯^ícwim‡i †`qv m¤¢e bq| GKK_vq nhi‡Zi mg‡q Rvwgqvq †hb DbœwZi †Rvqvi e‡q †M‡Q| Rvwgqvi D¯Ív` Ges QvÎ mK‡ji Rb¨B wZwb †hb GK QvZv m`„k| †h Kv‡iv wec`-Avc` I mgm¨vq cig ggZvi nvZ evwo‡q †`b wZwb|

Aciw`‡K mgvR-iv‡óÖi me©¯Í‡i Bmjvwg Av`k© cÖwZôvi e¨vcv‡iI Zvui cÖ‡Póv Kg bq| ¯^xq D¯Ív` I cxi kvBLyj Avie Iqvj Avhg nhiZ gvIjvbv mvBwq` ûmvBb Avng` gv`vbx in. Gi msMÖvgx Av`‡k© AbycÖvwYZ n‡q e„wUkwe‡ivax Av‡›`vj‡b kwiK n‡q‡Qb wZwb| mgvR I ivóÖxq ch©v‡q `xb cÖwZôvi gnr D‡Ï‡k¨ wewfbœ Bmjvwg ivR‰bwZK `j I Av‡›`vj‡bi mg_©K I mn‡hvMx wn‡m‡e KvR Ki‡Qb|

†ndvR‡Z Bmjvg evsjv‡`k MVb

eZ©gvb we‡k¦i Av‡jvwPZ AivR‰bwZK ag©xq msMVb Ô‡ndvRZ Bmjvg evsjv‡`kÕ A‡bKUvB Avjøvgv Avng` kdxi Agi m„wó| wZwb GB msMV‡bi m¤§vwby Avwgi| Zvui nv‡Z cÖwZwôZ G msMV‡bi e¨vbv‡i Bmjv‡gi eûwea †L`GZ n‡q‡Q| Bmjvg I Bmjvwg fveavivi weiæ‡× hLbB evwZjkw³ gv_vPvov w`‡q‡Q, wZwb GB msM‡Vi e¨vbv‡i †R‡M D‡V‡Qb| ag©nxb wk¶vbxwZ I KziAvbwe‡ivax bvixbxwZi weiæ‡× mdj Av‡›`vjb K‡i‡Qb| Avjøvn-ivmyj I Bmjvwg wewa-weav‡bi weiæ‡× bvw¯ÍK¨ev`x eøMvi‡`i Kzrmv iUbvi weiæ‡× 2013 mv‡ji 6 GwcÖj wZwb †h HwZnvwmK jsgvP© K‡i‡Qb, Zv BwZnv‡mi gvBjdjK n‡q _vK‡e|

Bmjvg I GZmjgv‡bi †h‡Kvb cÖ‡qvR‡b I `zw`©‡b hLbB †hLv‡b Zv‡K Avnevb Kiv nq wZwb mv‡_ mv‡_ jveŸvBK e‡jb| mn‡R ejv hvq †h, wZwb †`‡ki wewfbœ ivR‰bwZK `j-msMVb I Bmjvwg Av‡›`vj‡bi mgš^q¯’j| †h‡Kvb mgm¨vq Bmjvwg †by…e„›` nhi‡Zi Kv‡Q Qz‡U Av‡mb Ges nhi‡Zi civgk© mevB mv`‡i MÖnY K‡i †bb| 

KIgx wkÿvmb‡`i ¯^xK…wZ Av`v‡q mdj KvwiMi

eû Z¨vM-Zx¶v I Av‡›`vj‡bi c‡i Ae‡k‡l KIwg gv`ivmvi `vIiv‡q nvw`‡mi mb`-¯^xK…wZi wej RvZxq msm‡` cvk n‡q‡Q| `vIiv‡q nvw`m‡K BmjvwgK ÷¨vwWR I Aviwe mvwn‡Z¨ gv÷v‡m©i gvb cÖ`vb Kiv n‡q‡Q|

ch©‡e¶K I Bmjvwg e¨w³eM© g‡b K‡ib, 

G ¯^xK…wZ Lye mn‡R AR©b nqwb| GRb¨ A‡bK Av‡jvPbv-chv©‡jvPbv n‡q‡Q, A‡bK Av‡›`vjb I Av‡µv‡ki wkKvi n‡Z n‡q‡Q| ¶GZvi cvjve`j Avi ivR‰bwZK K~U‡KŠk‡j `vex Av`v‡q e¨_© n‡Z n‡q‡Q evievi| A‡bK msMÖvg I Av‡›`vj‡bi c‡i 2017 mv‡ji 11 GwcÖj MYfe‡b Avjøvgv Avng` kdx I Ab¨vb¨ †evW©cÖavbmn kxl©¯’vbxq Djvgv‡q †Kiv‡gi GK Abyôv‡b KIwg wkÿvmb‡`i miKvix ¯^xK…wZi AvbyôvwbK †NvlYv †`b MYcÖRvZš¿x evsjv‡`k miKv‡ii gvbbxq cÖavbgš¿x †kL nvwmbv| wZwb Zvui e³‡e¨ KIwg gv`ivmvi †MŠiegq HwZn¨ I Bmjvwg wk¶vi ¸iæ‡Z¡i K_v Zy‡j a‡ib|

2017 mv‡ji 13 GwcÖj| KIwg gv`ivmvi ¯^Zš¿ ˆewkó¨ eRvq †i‡L Ges `viæj Djyg †`Ie‡›`i g~jbxwZ Z_v Dmy‡j nvk‡ZMvbvi wfwˇZ KIwg gv`ivmvi m‡e©v”P ¯Íi `vIiv‡q nvw`m‡K mœvZ‡KvËi wWMÖxi mggvb  †NvlYv w`‡q cÖÁvcb Rvwi K‡i wk¶vgš¿Yvjq|

`xN©w`b a‡i ¯^xK…wZ Av`v‡qi Av‡›`vjb P‡j G‡jI Zv wewfbœ Kvi‡Y Av‡jvi gyL †`‡Lwb| B‡Zvc~‡e© ¯^xK…wZi Rb¨ wgwQj-wgwUs, ivRc‡_ MYAe¯’vbmn A‡bK Av‡›`vjb n‡q‡Q| ZeyI miKvignj †_‡K Zv Av`vq Kiv m¤¢e nqwb| Gi wecix‡Z †Kvb Av‡›`vjb-wgwQj QvovB Av‡jvPbvi gva¨‡g mb‡`i ¯^xK…wZ Av`vq Kiv Avjøvgv kvn Avng` kdxi GKK K…wZZ¡ ejv P‡j| Zvui e¨w³Z¡B Gi g~j PvwjKvkw³ wn‡m‡e KvR K‡i‡Qb gšÍe¨ we‡kølKiv| †m wn‡m‡e wZwbB mb‡`i ¯^xK…wZ Av`v‡qi mdj KvwiMi|

wek¦Ry‡o RbwcÖqZv I m¤§vbbv AR©b

BD‡ivc, Av‡gwiKv, A‡÷ªwjqv, jÛb, `zevB, KvZvi I evnivBb Z_v cÖvP¨-ga¨cÖvP¨mn mviv we‡k^ nhi‡Zi Bjg I cÖÁvi Drm †_‡K Aby‡cÖiYv jvfKvix QvÎ, wkl¨, GZwi` I Abymvixiv `x‡bi †L`GZ K‡i hv‡”Qb| we‡kl K‡i Avie †`k¸‡jv‡Z i‡q‡Q nhi‡Zi AvKvkPz¤^x RbwcÖqZv| Zvui bgÖZv, †Lv`vfxiæZv, Bjg I cÖÁv †`‡L cweÎ nvivg kwi‡di BgvgMY Zvu‡K Ôkv‡qLÕ e‡j m‡¤^vab K‡i _v‡Kb| D‡jøL¨, weMY 19 AvM÷ 2001 Zvwi‡L jÛb †_‡K †`‡k †divi c‡_ cweÎ Igiv cvj‡bi D‡Ï‡k¨ †mŠw` Avie Mgb Ki‡j nvivgvBb kwidvB‡bi gnvcwiPvjK kvqL mv‡jn web Avj ûgvB‡`i mv‡_ †mŠRb¨ mv¶v‡Z wgwjy n‡j wZwb nhiZ‡K cweÎ Kvev kwi‡di wMjv‡di GKwU Ask nvw`qv ¯^iƒc cÖ`vb K‡i m¤§vwby K‡ib| 2005 mv‡j Ôevsjv‡`k RvZxq mxivZ KwgwUÕ KZ©…K Zvu‡K 2005 mv‡ji Ô†kÖô Bmjvwg e¨w³Z¡Õ †NvlYv K‡i ¯^Y©c`K cÖ`vb K‡i, hv Zvui eY©vX¨ Rxe‡bi Ab¨Zg ¯^xK…wZ| GQvovI Zvui fvÐv‡i i‡q‡Q †`k-we‡`‡ki eû msMVb I ms¯’vi AmsL¨ m¤§vbbv|

wkiK-we`AvZ I Kzms¯‹vigy³ mgvR MV‡b wb‡ew`ZcÖvY GKRb kvBLyj Bmjvg

m~‡h©i Av‡jvKiwk¥ †hgwbfv‡e wek¦evmx‡K c_ †`Lvq, wVK †Zgwb GKRb mwZ¨Kv‡ii bv‡q‡e bexI wek¦evmx‡K m‡Z¨i mÜvb w`‡Z m¶g| GZmwjg D¤§vni GB Z¨vMx, msMÖvgx, wk¶vbyivMx I wecøex mgvRms¯‹viK Avjøvgv kvn Avng` kdx nvwd. Rxe‡bi m~Pbv †_‡K wkiK, we`AvZ, Keic~Rv, gvRvic~Rv Z_v mKjcÖKvi Kzms¯‹vi D‡”Q‡`i †¶‡Î m`v RvMÖZ| nhi‡Zi Av‡eMNb, `i`gvLv, R¡vjvgqx I mviMf© Dc¯’vcbv †`kRz‡o e¨vcK Av‡jvob m„wó K‡i‡Q| evsjvi me©‡kÖYxi Rbmvavi‡Yi gvbmc‡U ZvIwn‡`i evYx †cŠu‡Q †`qvi j‡¶¨ cÖwZwbqZ IqvR, e³…Zv I ¸iæZ¡c‚Y© fvlY cÖ`vb K‡i hv‡”Qb wZwb| Zvui Pz¤^Kxq AvKl©Yxq e³…Zv ï‡b AmsL¨ gvbyl wd‡i G‡m‡Qb Kzms¯‹vi I AÜ Abymi‡Yi †eóbx †_‡K| wVK †Zgwbfv‡e Cgvb-AvwK`v I Kvw•LY c‡_i mwVK mÜvb †c‡q ab¨ n‡”Q wfwËnxb aviYvq RR©wiZ wKsKZ©e¨weg~p AMwYZ Av`g mšÍvb|

nhiZ cÖvqmgq Rvwgqvi cÖavb (evBYzj Kwig Rv‡g gmwR`) kvwn gmwR‡` Rvwgqvi wk¶v_©x‡`i gv‡S KziAvb-mybœvni Av‡jv‡K w`Kwb‡`©kbvg~jK mviMf© bwmNy cÖ`vb Ki‡Z wM‡q e‡jb, Ô†n Rv‡gqvi my‡hvM¨ mšÍv‡biv, †Zvgv‡`i‡K Aek¨B ¯§iY ivL‡Z n‡e †h, †ZvgivB †`k I RvwZi fwel¨Z-KY©avi| †`‡ki j¶-†KvwU ag©cÖvY ZvIwn`x Rbyv‡K ag©xq åvšÍ AvwK`v-wek¦vm, cwðgv K…wó-KvjPvi I Zvnwhe-ZvgvÏy‡bi KivjMÖvm †_‡K GZ³ Kivi fqsKi P¨v‡j‡Äi †gvKv‡ejv †Zvgv‡`i‡KB Ki‡Z n‡e| Bmjvwg SvÐvi aviK I evnK n‡q Bmjv‡gi my`„p mxgvbv i¶vq AZ›`ÖcÖnwii f~wgKvq †Zvgv‡`i‡KB AeZxY© n‡Z n‡e| Kv‡RB Bjg-Avgj I m”Pwi‡Îi Avmgvbx kw³ mÂq K‡i Zv¸Z Z_v mKj Ackw³i weiæ‡× wRnv‡` AeZxY© nIqvi cÖ¯ÍzwZ MÖn‡Y wb‡R‡`i‡K ˆZwi K‡i bvI|Õ

GQvovI †`ke¨vcx evnvm-gyevnvmv Z_v ZK©-weZ‡K©i gva¨‡g mgvR †_‡K Kzms¯‹vi I we`AvZ‡K `‚ixf‚Z Kivi e¨vcv‡i nhi‡Zi Ae`vb AZzjbxq|

Ava¨vwZ¥KZvi gq`v‡b kvBLyj Bmjvg

Kg©gq Rxe‡bi nvRv‡iv e¨¯ÍZv m‡Ë¡I mgq I wbqgvbyewZ©Zv nhi‡Zi Rxe‡bi GK Awe‡”Q`¨ Ask| w`biv‡Zi g~j¨evb mgq¸‡jv‡K wewfbœ fv‡M wef³ K‡i Aa¨vcbv, gv`ivmv cwiPvjbv, mv‡_ mv‡_ bvgvh-wZjvIqvZ, whwKi-AvhKvi Ges `k©bv_©x I ïfvKv•Lx‡`i mv¶vZ`vb BZ¨vw` m¤úv`b K‡i _v‡Kb|

Mfxi iRbx‡Z Aebx hLb Mfxi wb`Övq Av”Qbœ, kvBLyj Bmjvg ZLb `vuwo‡q hvb Rvqbvgv‡h| GKvšÍ wbR©‡b e‡m Av`vq K‡ib wewfwbœ AwRdv| †`vqv K‡ib wb‡Ri Rb¨, †`‡ki Rb¨ Ges GZmwjg D¤§vni Rb¨| P‚ovšÍ ch©v‡qi GZËvwK I ci‡nRMvi, †Lv`vfxiæZv I ci‡nRMvixi g~Z©cÖwZK I Ab~miYxq G gnvb e¨w³ Avjøvni cÖwZ c~Y© AvbyMY¨ Ges hveZxq cvc-cw¼jyv †_‡K GZ³ _vK‡Z mvabvq wb‡R‡K eÖZ iv‡Lb memgq|

cÖKvk¨-†Mvc‡b, kqb I ¯^c‡b, mi‡e-bxi‡e, Avb›`-†e`bvq, my‡L-`yt‡L, nvwm-Kvbœvq, my¯’Zv I Amy¯’Zvq, md‡i-BKvgv‡Z; Rxe‡bi cÖwZwU †¶‡Î nhi‡Zi ZvKIqvi AZzjbxq `„óvšÍ fwel¨Z cÖR‡b¥i Rb¨ wPi AbyiYxq I AbyKiYxq n‡q _vK‡e| nhi‡Zi Bj‡g Rv‡nwii gva¨‡g †hgb AmsL¨ †jvK wn`vqv‡Zi w`Kwb‡`©kbv cv‡”Q, †Zgwbfv‡e Zvui Bj‡g ev‡Zwb A_©vr Ava¨vwZ¥K Áv‡bi gva¨‡gI eû  †jvK AvZ¥ïw×i GZ †`Šjy jvf K‡i‡Q Ges Ki‡Q| Ava¨vwZ¥K avivq nhi‡Zi KvQ †_‡K G ch©šÍ cÖvq evi mnmÖvwaK fvM¨evb e¨w³ mivmwi BRvhZcÖvß nIqvi †mŠfvM¨ jvf K‡i‡Qb| Gi AvswkK ZvwjKv Zvui wjwLY ÔdqyRv‡Z Avngw`qvÕ bvgK MÖ‡š’ mwbœ‡ewkZ Kiv n‡q‡Q|

wjLbxi gq`v‡b kvBLyj Bmjvg

Kjgx wRnv‡`i gq`v‡bI i‡q‡Q nhi‡Zi AmvaviY Ávb-cÖÁv I Zxÿè M‡elYvi `yj©f cÖwZfvi ev¯Íe cÖwZdjb| whwb nvRv‡iv e¨¯ÍZvi gv‡SI wkiK-we`AvZ I AmsL¨ åvšÍ GZev‡`i `vuZfvOv Reve w`‡q iPbv K‡i‡Qb AwZ g~j¨evb MÖš’mg~n| wjLbxi gq`v‡b nh‡Zi ¶ziavi Kjg evwZ‡ji AvZ¼ ¯^iƒc| nhi‡Zi iwPZ A‡bK wKZve evwZ‡ji wfZ‡K boe‡o K‡i w`‡q‡Q| Gme MÖš’vewj †_‡K mvaviY GZmjgv‡bi cvkvcvwk Djvgv‡q †KivgI h‡_ô DcK…Z n‡”Qb| nhi‡Zi iwPZ åvšÍ GZev‡`i GZ‡Lvk D‡¤§vPbKvix †hme MÖš’ Av‡jg-Djvgvmn me©¯Í‡ii cvVKgn‡j mgv`„Z, mv‡_ mv‡_ MÖnb‡hvM¨ZviI kx‡l©, †m¸‡jv nj:

* Avj-evqvbyj dvwmj evBbvj nvw° Iqvj evwZj (D`©©y)

* Avj-dqhyj Rvix (eyLvwi kwid GKvs‡ki D`©©y e¨vL¨vMÖš’)

* Avj-ûRvRyj K¡vwZqvn& wj`vdwqb bvnwRj LvwZqvn (D`©y)

* Avj-LvBiæj Kvmxi dx Dm~wjZ Zvdmxi (D`©©y)

* Bmjvg Iqv wQqvQZ (D`©©y)

* Bhnv‡i nvwKKZ (D`©©y)

* ZvKwd‡i GZmwjg (D`©©y)

* Pv›`Ö-I‡qRvu (D`©©y)

* dzqyhv‡Z Avngw`qv (D`©©y)

* nK I evwZ‡ji wPišÍb Ø›Ø

* Bmjvwg A_©e¨e¯’v

* Bhnv‡i nvwKKZ ev ev¯Íe `„wó‡Z gI`yw` GZev`

* ZvKwd‡i GZmwjg ev GZmjgvb‡K Kvwdi ejvi cwiYvg

* m‡Z¨i w`‡K KiæY AvnŸvb

* azgcvb wK Avwke©v` bv Awfkvc

* GKwU m‡›`‡ni Aemvb

* GKwU ¸iæZ¡c‚Y© d‡Zvqv

* ZvejxM GKwU Ab¨Zg wRnv`

* BQg‡Z Avw¤^qv I wgÕqv‡i nK

* evqAv‡Zi nvwKKZ

* mybœvZ-we`Av‡Zi mwVK cwiPq

GQvovI D`©©y I evsjv fvlvq nhi‡Zi Av‡iv A‡bK¸‡jv g~j¨evb MÖš’ cÖKv‡ki A‡c¶vq i‡q‡Q|

 

Dcmsnvi

AvR Avgiv Z_v mgMÖ RvwZ Ávb-weÁvb I Ava¨vwZ¥KZvi †¶‡Î Av‡jvob m„wóKvix GB eyRzM© kvBLyj Bmjvg Avjøvgv kvn Avng` kdx nvwdhwûjøvn‡K †c‡q †MŠie †eva KiwQ| wZwb †Kej MYvbyMwZK GKRb GZNyvwgg ev kvBLyj nvw`m bb, eis BwZnvm m„wóKvix cÖwZfvevb e¨w³ MV‡bi GK Awfbe KvwiMiI e‡U| ZvB †Zv AvR wek¦evmx cyjK`„‡ó Ae‡jvKb Ki‡Qb †h, nhi‡Zi nv‡Z Mov AmsL¨ f³ I kvMwi` we‡k¦i Avbv‡P-Kvbv‡P ¸iæZ¡c~Y© wewfbœ cÖwZôv‡b Kg©iZ †_‡K `x‡bi Qwo‡q w`‡”Qb| †h Av`k© cyiæ‡li cÖÁvgq AvPi‡Y-e¨w³‡Z¡ wcÖq bexi wk¶v I Av`‡k©i cwic‚Y© cÖwZdjb N‡U, hvu‡`i †`‡L nhiZ mvnvev‡q †Kiv‡gi Aeqe †Pv‡Li mvg‡b †f‡m D‡V, †m iKgB GKRb e¨w³Z¡ nhiZ Avjøvgv kvn Avng` kdx nvwdhvûjøvn|

eZ©gvb ˆbwZK I PvwiwÎK Ae¶‡qi †Zv‡o †f‡m hvIqv gvbe‡Mvwô‡K GKUv w¯’i I cyZtcweÎ c‡_ †U‡b Avbvi j‡¶¨ AK¬všÍ KvR K‡i hv‡”Qb wZwb| Av`k© I AbyKiYxq e¨w³ Movi Rb¨ †h ai‡bi e¨w³‡Z¡i cÖ‡qvRb, Avjøvgv kvn Avng` kdxi Rxeb cÖevn †m Pvwn`v c~iY Ki‡Z m¤ú‚Y© m¶g|

gnvb iveŸyj Avjvwg‡bi `iev‡i cÖv_©bv, wZwb †hb nhi‡Zi AvwdqvZgq nvqv‡Z eiKZ `vb K‡ib Ges nhiZi‡K Rxe‡bi †kl wbtk¦vm ch©šÍ Awc©Z `vwq‡Z¡ eÖZ iv‡Lb| hv‡Z K‡i nhi‡Zi d‡qR-eiKZ Ges w`Kwb‡`©kbv Av‡iv `xN©Kvj Avgiv jvf Ki‡Z cvwi| ZvQvov nhi‡Zi AbjSiv IqvR-bwmn‡Z eû c_nviv gvbyl mwVK c‡_i w`kv jvf KiæK| eZ©gv‡bi Bmjvg I GZmjgv‡bi Pig msKUKv‡j c_nviv GZmjgvbiv †hb nhi‡Zi KvQ †_‡K c‡_i w`K-w`kv cvq, †m KvgbvB Kwi|


†jLK:
M‡elK I wmwbqi wkÿK,
`viæj Djyg gyCbyj Bmjvg nvUnvRvix, PÆMÖvg|


রাশিদুল ইসলাম: বাংলাদেশের প্রাচীনতম দীনি শিক্ষা নিকেতন আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী প্রতিষ্ঠার সূচনালগ্ন থেকেই দেশে ধর্মীয় শিক্ষা-দীক্ষার পরিবেশ তৈরির পাশাপাশি দীনের বহু অঙ্গনে ইসলাম ও মুসলিম উম্মাহর খেদমত করে আসছে। বিশেষত উম্মাহর বিভিন্ন জীবন জিজ্ঞাসার সঠিক সমাধানের মত গুরুত্বপূর্ণ কাজও জামিয়ার ইসলামী আইন-গবেষণা বিভাগের পাশাপাশি জামিয়ার মুখপত্র ( র্ম ও তাহযীব বিষয়ক সাময়িকী ) মাসিক 'মুঈনুল ইসলাম' এর মাধ্যমে প্রায় ত্রিশ বছর থেকে সমাধান দিয়ে আসছে।

পত্রিকা প্রকাশের শুরুলগ্ন থেকেই জিজ্ঞাসা-সমাধান বিভাগটির দায়িত্ব পালন করে আসছে জামিয়ার উচ্চতর বিভাগ 'তাখাসসুস ফিল ফিকহিল ইসলমী ( ইসলামি আইন-গবেষণা ) বিভাগ।

উম্মাহর বৃহৎ ফায়দার জন্য জামিয়ার মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী হাফিযাহুল্লাহুর নির্দেশনায় মাসিক মুঈনুল ইসলাম পত্রিকায় প্রেরিত প্রশ্নের সমাধানগুলো একত্রিত করে, ফেকহী কিতাবের নিয়ম অনুযায়ী অধ্যায় ভাগ করে ভলিয়ম আকারে সংকলন করা হয়েছে 'ফাতওয়া মুঈনুল ইসলাম'-১।

সংকলনের এ গুরুদায়িত্ব পালন করেছেন জামিয়ার উচ্চতর বিভাগ 'দারুত তাসনীফ'। বিভাগটির প্রথম বছরের সংকলন হিসেবে উক্ত ফাতওয়ার খণ্ডটি তাঁরা সাফল্যের সাথে আঞ্জাম দিতে সক্ষম হয়েছে।

'ফাতওয়া মুঈনুল ইসলাম' এর প্রথম খণ্ডে রয়েছে কিতাবুত তহারত এবং সালাত। ধারাবাহিক বেশকিছু খণ্ডে ফাতওয়ার কিতাবটি প্রকাশিত হবে ইনশাআল্লাহ।

সত্যায়ন
ফাতাওয়ার কিতাবটি সংকলন প্রস্তুত করে, সত্যায়নের জন্য ফাতওয়া বিভাগের সকল উস্তাযের কাছে পাঠানো হলে সকলেই গুরুত্বের সাথে সংকলনটি দেখেছেন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়েছেন। 
বিশেষত মুফতী নূর আহমাদ হাফি. মুফতী আবদুস সালাম হাফি. মুফতী জসীমুদ্দীন হাফি. মুফতী কিফায়াতুল্লাহ হাফি. এবং মুফতী ফরীদুল হক হাফি.।

উল্লেখ্য, কিতাবটির শুরুতে দীর্ঘ ৬০ পৃষ্ঠাব্যাপী মুফতিয়ানে কেরাম ও আসাতিযায়ে কেরামের দুআ ও অভিমত রয়েছে।
কিতাবটির সৌন্দর্য আরো বহুগুণে বৃদ্ধি করে দিয়েছে, জামিয়ার বিশিষ্ট ফকীহ ও মুহাদ্দিস মুফতী কিফায়াতুল্লাহ হাফিযাহুল্লাহুর জ্ঞানগর্ভ ভূমিকা।  'ফাতাওয়া মুঈনুল ইসলাম: কিছু মৌলিক আলোচনা” শীর্ষক ভূমিকায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্থান পেয়েছে। কিতাবটি বিশেষত ফিকহ-ফাতাওয়ার সাথে সম্পর্ক রাখেন- এমন প্রত্যেকের জন্য উপকারে আসবে। 

কিতাবটি সংকলনের ক্ষেত্রে 'দারুত তাসনীফ' বিভাগটিকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেছেন, মাসিস মুঈনুল ইসলামের সম্পাদক, দারুত তাসনীফ বিভাগের নেগরান মুফতী আবদুল্লাহ নাজীব হাফিযাহুল্লাহ।

হাদিয়া
তিনশত পঞ্চাশ টাকা।

আপতত প্রাপ্তিস্থান
মাসিক মুঈনুল ইসলাম কার্যালয়।
যোগাযোগ : ০১৬৩৮-২৩৪৫৩৫

অনলাইন ডেস্ক: সারাবিশ্বে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে ৮৪ লাখ তিন হাজার পাঁচশ ৯৯ জন এবং মারা গেছে চার লাখ ৫১ হাজার তিনশ ৮৩ জন। করোনা থামাতে লকডাউনে রয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে, বারবার হাত ধুয়ে এবং নাক-মুখ ও চোখ স্পর্শ না করে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার কথা। এই করোনাকালে ঘরবন্দি থাকার ফলে নারী নির্যাতন যেমন বেড়ে গেছে, মানসিক অবসাদে ভুগতে থাকা রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার মতো খবরও শোনা যাচ্ছে।

এবার জানা গেল, করোনার সময়ে বিভিন্ন দেশের একাধিক জনপ্রিয় মডেল, তারকা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। শুধু ইসলাম গ্রহণ করেই তারা ক্ষান্ত হননি, গর্বের সঙ্গে তা তারা জানিয়েছেন বিশ্ববাসীকে। ইসলাম গ্রহণকারীদের অনেকেই জীবনের প্রথম ইফতার, রমযানের অনুভূতিও গণমাধ্যমে প্রকাশ করেছেন।

তাদের মধ্যে অন্যতম তানাশা দোনা। পুরো নাম তানাশা দোনা বারবিয়ারি অকেচ। মুসলিম হওয়ার পর নিজের নাম রেখেছেন আয়েশা। তিনি কেনিয়ার জনপ্রিয় একজন রেডিও উপস্থাপক, উদ্যোক্তা ও মডেল। ‘ফর হার লাক্সারি হেয়ার’ নামক একটি হেয়ার ব্রান্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং প্রতিষ্ঠাতা।

তার স্বামী মুসলিম, পরে তিনিও মুসলিম হলেন। তানাশা তার ইসলাম গ্রহণের ব্যাপারে প্রথম জানিয়েছিলেন স্বামীর বোন ইসমাকে। গত ২৫ এপ্রিল সর্বপ্রথম তিনি ইসলাম গ্রহণের বিষয়টি বন্ধু মহলে প্রকাশ করেন। সেদিনই জীবনের প্রথম রোযা তিনি পূর্ণ করেন ও ইফতার করেন।

তানাশার স্বামী ডায়মন্ড বলেন, ‌‌‌‌আমি কখনো তাকে ইসলাম গ্রহণ করতে চাপ দিইনি। তবে পরামর্শ দিয়েছিলাম। সে যদি তা গ্রহণ করতে চায় করবে। আমি তার জন্য দোয়া করব। এরপর সে যখন ইসলাম গ্রহণ করল আমরা তখন কিগমা শহরে ছিলাম। এদিকে অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় রেসলিং তারকা উইলহেলম ঘরবন্দী সময়টাকে অযথা বসে না থেকে শুরু করে দেন ইসলাম নিয়ে পড়াশোনা ও গবেষণা।

একপর্যায়ে তিনি নিজের মনের সঙ্গে বিচার করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। গত ১৬ এপ্রিল কালেমা পাঠ করে তার ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে তার ইনস্টাগ্রাম পোস্টে বলেন, করোনার সঙ্কট আমাকে আমার বিশ্বাস খুঁজে পেতে সাহায্য করেছে। ইসলাম বহু বছর ধরেই আমার মনোজগতের দখলে ছিল। যখনই আমার কঠিন সময় ছিল তখনই ইসলামিক বিশ্বাস আমাকে প্রয়োজনীয় শক্তি দিয়েছে। আমার ধর্মবিশ্বাস এখন যথেষ্ট শক্তিশালী। আমি আমার প্রকৃত সত্ত্বাকে চিনতে পেরেছি। গর্বের সঙ্গে কালেমা পাঠ করতে পেরেছি। হ্যাঁ, এখন থেকে আমি একজন মুসলিম।

আরেকজন হলেন লিসা মার্সেদেজ। তিনি ব্রিটিশ জ্যামাইকার একজন প্রসিদ্ধ নৃত্যশিল্পী। ইসলাম গ্রহণের দুই মাস পর গত মাসের ৩ তারিখে ‘শাহাদা’ নামে একটি সঙ্গীত ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করে তার ইসলাম গ্রহণের বিষয়টি প্রকাশ করেন।

লিসার জন্ম জ্যামাইকার কিংস্টন শহরে। নিজের ইসলাম গ্রহণের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমি একজন নৃত্যশিল্পী। আগে খোলামেলা পোশাক পরতাম। এখন যেখানে সম্ভব হয় স্কার্ফ পরার চেষ্টা করি। নিজেকে আগের তুলনায় আরো বেশি ঢেকে রাখি।

প্রবচন ডেস্ক: দেশের জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী সুজানা জাফর। কয়েক বছর ধরে একজন ব্যবসায়ী হিসেবেও সুপরিচিত তিনি। পাশাপাশি একজন সমাজ সচেতন মানুষ হিসেবেও সমাদৃত।

বছর জুড়েই এতিম ও বৃদ্ধদের জন্য নানারকম উদ্যোগ থাকে তার। করোনা পরিস্থিতিতেও বেশকিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। সম্প্রতি ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা ইউনিয়নের পাড়াগাঁও এলাকার এক বৃদ্ধার দায়িত্ব নিয়েছেন।

এবার নতুন খবর হলো অভিনয় শোবিজ জগত ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দিলেন লাক্স ফটো-সুন্দরী মডেল ও অভিনেত্রী সুজানা জাফর। শোবিজ ছেলে ধর্মে-কর্মে মন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

২০১৮ সালের নভেম্বরে ওমরাহ হজ পালন করেন সুজানা। গত তিন মাস হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে নিয়মিত কোরআন, হাদিস পড়েছেন। আর ধীরে ধীরে নাকি বদলে গেছে তার মন। এমনটাই জানান তিনি।

সুজানা বলেন, ‘গত ৩ মাসে কোরআন, হাদিস থেকে যা শিখেছি সেখান থেকে আমি যে শান্তি পেয়েছি, তা আগে কখনই পাইনি। আমার মন থেকে মিডিয়ায় কাজের ইচ্ছে নষ্ট হয়ে গেছে। তাই আমি মিডিয়াতে আর কাজ করবো না।’

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে মডেলিং এর মাধ্যমে মিডিয়ায় যাত্রা শুরু করেন সুজানা জাফর। ২০০৩ সালে তিনি লাক্স ফটোসুন্দরী খেতাব পান। এরপর অনেক বিজ্ঞাপন, মিউজিক ভিডিও, নাটকে তার দেখা মিলেছে। গত ৩ বছর ধরে মিডিয়াতে অনিয়মিত সুজানা। বর্তমানে বুটিক্স ব্যবসা করছেন।


আবুল কাসেম আদিল
মাঝেমধ্যে নিজের অজ্ঞতা দেখে বিস্মিত হয়ে যাই। প্রায়ই আবিষ্কার করি, অনেক আগে থেকে অন্যরা এমন অনেক কিছু জানে, যা আমি জানতাম না। এমনই একটি বিষয় হলো, ফরয নামাযের পরে সম্মিলিতভাবে হাত তুলে নিয়মিত মোনাজাত করা। আমি ছোট থেকে ভোলার বিভিন্ন মাদরাসায় হিদায়াহ আউয়ালাইন পর্যন্ত পড়াশোনা করি। ভোলার মাদরাসাগুলো হাটহাজারী মাদরাসার অনুকরণ করে। ফলে সে মাদরসাগুলোতে দেখে এসেছি এবং শুনে এসেছি, হাটহাজারী মাদরাসায় ফরয নামাযের পরে সম্মিলিত মোনাজাত বিদয়াত মনে করা হয়। আমি দারুল উলূম হাটহাজারী মাদরাসায় ভর্তি হই ২০০৬ সালে। পড়াশোনা করি ২০১৩ সাল পর্যন্ত। এই ৬ বছর ধরে আগের জানা মাসআলায় হাটহাজারী মাদরাসাকে অবিচল দেখতে পাই। এর ব্যতিক্রম মাসআলাও যে কওমী অঙ্গনে চর্চিত হয়ে আসছে, তখন আমি ঘুণাক্ষরেও জানতাম না। কয়েকদিন আগে সালাফীদের সঙ্গে কিছু কওমী তরুণের বিতর্ক হয়। বিষয়: ফরয নামাযের পর সম্মিলিত মোনাজাত করা বিদয়াত কি না। আশ্চর্য হয়ে খেয়াল করলাম (মূলত খেয়াল করে আশ্চর্য হলাম), কওমী তরুণদের অবস্থান বিদয়াত না হওয়ার পক্ষে। সালাফী মতাদর্শের সঙ্গে কওমীদের বেশ কিছু বিষয়ে গবেষণাগত মতবিরোধ আছে। সম্মিলিত মোনাজাতও যে তাদের সঙ্গে একটা মতবিরোধপূর্ণ বিষয়, সত্যি আমি জানতাম না। আমাদের বড়ভাই লাবীব আবদুল্লাহ এই সময়ে তর্কের চেয়ে ঐক্য জরুরি মর্মে একটি পোস্ট করে তোপের মুখে পড়েন। যাঁরা লাবীব আবদুল্লাহকে রীতিমত ‘ধুয়ে’ দেন, তাঁরা সবাই কওমী অঙ্গনের লোক। তাঁরা প্রায় সবাই সম্মিলিত মোনাজাত বিদয়াত না হওয়ার পক্ষে।

উত্তপ্ত উনুনের উপর ফুটন্ত কড়াইয়ের মতো সবাই ফুটতে শুরু করেন, যখন আমাদের আরেক বড়ভাই শায়খ আহমাদুল্লাহ ফরয নামাযের পরে সম্মিলিত মোনাজাত বিদয়াত বলেন। শায়খ আহমাদুল্লাহ ভাইয়ের চিন্তাচর্চায় সালাফী ও দেওবন্দী ঘরানার মিলিত অবদান রয়েছে। তিনি পড়াশোনা করেছেন বাংলাদেশের হাটহাজারী ও মেখল মাদরাসায়। পড়িয়েছেন বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ দু’টি কওমী মাদরাসায়—আরজাবাদ ও দারুর রাশাদ। এরপর দীর্ঘদিন সৌদি আরবের ইসলামিক সেন্টারে কর্মরত ছিলেন। সব মিলিয়ে তাঁর মধ্যে ভারসাম্যপূর্ণ একটা ব্যাপার আছে।

ব্যাপারটা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার এক পর্যায়ে জানতে পারলাম, দারুল উলূম দেওবন্দে সম্মিলিত মোনাজাত করা হয়। দেওবন্দের কথা শুনে নড়েচড়ে বসতে হলো। হাটহাজারী মাদরাসা দেওবন্দের অনুকরণে প্রতিষ্ঠিত। এতদসত্ত্বেও দু’টি প্রতিষ্ঠান স্বতন্ত্রভাবে চালিত হওয়ায় অমৌলিক দু’-একটা বিষয়ে ভিন্নমত দেখা যায়। ভিন্নমতের ক্ষেত্রে সবাই দারুল উলূম দেওবন্দের মাসআলাই বেশি গ্রহণ করে। কারণ দেওবন্দের গবেষণার মান নিঃসন্দেহে হাটহাজারী মাদরাসার চেয়ে ভালো।

মাসআলা যেটাই ‘অধিক শুদ্ধ’ হোক এটা তো নিশ্চিত যে, শায়খ আহমাদুল্লাহ নতুন কিছু বলেন নি। তিনি আজ যা বললেন, হাটহাজারী মাদরাসা ও মুফতী ফয়যুল্লাহ রহ.-এর অবস্থান এ-ই। এ-কারণে শায়খ আহমাদুল্লাহকে ‘ধুয়ে দেয়া’র মজেজা বুঝলাম না। আহমাদুল্লাহ ভাই যদি ভুলও বলেন, দেওবন্দে চর্চিত মাসআলার বিপরীতও যদি বলেন—এজন্য তাঁকে ধুয়ে দেয়ার আগে হাটহাজারী মাদরাসা ও মুফতী ফয়যুল্লাহ রহ.-কে ধুয়ে দেয়া উচিত। শায়খ আহমাদুল্লাহর জন্মেরও আগে মুফতী ফয়যুল্লাহ এটিকে বিদয়াত বলেছেন।

এই মাসআলায় দেওবন্দ ও হাটহাজারী মাদরাসার বিরোধ আলোচনার যোগ্যই নয়। এটি একেবারে অমৌলিক ও খুব ঠুনকো একটি বিষয়। তারপরও বিশেষভাবে এই ক্ষেত্রে হাটহাজারী মাদরাসার অবস্থানই আমার কাছে শক্তিশালী মনে হচ্ছে। হাটহাজারী মাদরাসা ও এই মাদরাসার অন্যতম চিন্তাগুরু মুফতী ফয়যুল্লাহর অবস্থান হলো— (১) ফরয নামাযের পরে (২) হাত তুলে (৩) সম্মিলিতভাবে (৪) নিয়মিত মোনাজাত করা বিদয়াত। শর্তগুলো খেয়াল করুন। সবগুলো শর্ত একত্রে পাওয়া গেলেই শুধু বিদয়াত। এসব শর্তের কোনো একটা অনুপস্থিত থাকলে বিদয়াত নয়। স্রেফ একটা পন্থায় বিদয়াত। এছাড়া আর যত পন্থা আছে, তাতে বিদয়াত হবে না। যেমন:
১. ফরয নামাযের পর একা একা হাত না তুলে অনিয়মিত মোনাজাত করা
২. ফরয নামাযের পর একা একা হাত তুলে অনিয়মিত মোনাজাত করা
৩. ফরয নামাযের পর একা একা হাত না তুলে নিয়মিত মোনাজাত করা
৪. ফরয নামাযের পর একা একা হাত তুলে নিয়মিত মোনাজাত করা
৫. ফরয নামাযের পর সম্মিলিতভাবে হাত না তুলে অনিয়মিত মোনাজাত করা
৬. ফরয নামাযের পর সম্মিলিতভাবে হাত তুলে অনিয়মিত মোনাজাত করা বিদয়াত নয়।

বর্তমান সময়ের অন্যতম বিজ্ঞ আলেম মাওলানা আবদুল মালেক হাফিযাহুল্লাহর একটা লেখা সম্মিলিত মোনাজাত প্রমাণ করার জন্য অনেকে পেশ করেছে। আমি লেখাটা পড়ে বুঝেছি, তিনি দালিলিকভাবে সম্মিলিত মোনাজাত সাব্যস্ত করেছেন। তবে ফরয নামাযের পরে সম্মিলিতভাবে হাত উঠিয়ে ‘নিয়মিত’ মোনাজাত সম্পর্কে তিনি কিছু বলেন নি। ফলে তাঁর অবস্থানের সঙ্গে মুফতী ফয়যুল্লাহ রহ.-এর অবস্থানের বিরোধ নেই।

যাঁরা ফরয নামাযের পর সম্মিলিতভাবে হাত তুলে নিয়মিত মোনাজাত করা বিদয়াত নয় বরং মুস্তাহাব বলছেন, আমার জানামতে তাঁদের দলিল হলো—

১. আনাস বিন মালিক রা. থেকে বর্ণিত,
عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّهُ قَالَ: مَا مِنْ عَبْدٍ بَسَطَ كَفَّيْهِ فِي دُبُرِ كُلِّ صَلَاةٍ، ثُمَّ يَقُولُ: اللَّهُمَّ إِلَهِي وَإِلَهَ إِبْرَاهِيمَ ... إِلَّا كَانَ حَقًّا عَلَى اللَّهِ عَزَّ وَجَلَّ أَنْ لَا يَرُدَّ يَدَيْهِ خَائِبَتَيْنِ
(মর্মার্থ) রাসূলুল্লাহ সা. বলেছেন, যে বান্দা প্রত্যেক নামাযের পরে হাত সম্প্রসারিত করে দোয়া করে, আল্লাহর জন্য জরুরি যে তার হাত নিষ্ফল ফেরত না দেয়া। (আমালুল-ইয়াউম ওয়াল-লাইলাহ ১/১২১)

২. আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত,
أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ رَفَعَ يَدَهُ بَعْدَ مَا سَلَّمَ، وَهُوَ مُسْتَقْبَلٌ الْقِبْلَةَ فَقَالَ: اللَّهُمَّ خَلِّصِ الْوَلِيدَ بْنَ الْوَلِيدِ...
(মর্মার্থ) রাসূলুল্লাহ সা. সালাম ফেরানোর পর কিবলার দিকে ফিরে হাত তুলে দোয়া করেছেন। (তাফসীর ইবনে কাসীর ২/৩৯০)

৩. আবদুল্লাহ বিন যুবাইর রা. থেকে বর্ণিত,
أن رجلاً رفع يديه بالدعاء قبل أن ينتهي من صلاته ، فلما فرغ قال له عبد الله : إن النبي صلى الله عليه وسلم لم يكن يرفع يديه بالدعاء إلا بعد أن يفرغ من صلاته
একব্যক্তি নামায শেষ হওয়ার আগে হাত তুলে দোয়া করলেন। নামায শেষ হওয়ার পর আবদুল্লাহ বিন যুবাইর তাঁকে বললেন, নবী সা. কখনো নামায শেষ হওয়ার আগে দোয়ার জন্য হাত তুলতেন না।

খেয়াল করে দেখুন, এর কোনো একটা দলিল দ্বারাও ‘নিয়মিত’ মোনাজাত করা সাব্যস্ত হয় না। ফরয নামাযের পর সম্মিলিত বা একা একা মোনাজাত করার বিরোধিতা তো কেউ করছে না, শায়খ আহমাদুল্লাহও তা বলছেন না। এটাকে একমাত্র নিয়ম বানিয়ে ফেলা নিয়ে মতানৈক্য।

অন্যদিকে যাঁরা ফরয নামাযের পর হাত তুলে সম্মিলিতভাবে নিয়মিত মোনাজাত করার বিরোধিতা করছেন, তাঁদের দলিলগুলো দেখুন। তাহলে আপনারা সহজেই তুলনা করতে পারবেন।

১. আনাস রা. থেকে বর্ণিত,
أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لَمْ يَكُنْ يَرْفَعُ يَدَيْهِ فِي شَيْءٍ مِنَ الدُّعَاءِ إِلَّا فِي الِاسْتِسْقَاء
রাসূলুল্লাহ সা. ইস্তিসকা ছাড়া কখনো দোয়ার সময় হাত তোলেন নি। (মুসনাদ আবি ইয়া’লা ৫/৩৩৩, সুনান দারা কুতনী ২/৪২৬,

২. সাওবান রা. থেকে বর্ণিত,
قَالَ: كَانَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، إِذَا انْصَرَفَ مِنْ صَلَاتِهِ اسْتَغْفَرَ ثَلَاثًا وَقَالَ: اللهُمَّ أَنْتَ السَّلَامُ وَمِنْكَ السَّلَامُ، تَبَارَكْتَ ذَا الْجَلَالِ وَالْإِكْرَامِ
রাসূলুল্লাহ সা. যখন নামায শেষ করতেন, তিনবার ইস্তেগফার করতেন এবং আল্লাহুম্মা আনতাস-সালামা ওয়া মিনকাস-সালাম এই দোয়াটা পড়তেন। (সহীহ মুসলিম ১/৪১৪)

ইস্তেগফারও মূলত দোয়া। কিন্তু আমরা যেভাবে হাত তুলে দোয়া করি, এতে সেরকম দোয়া বোঝায় না। এই হাদীসের ব্যাখ্যায় ইমাম আওযায়ী বলেছেন, ইস্তেগফার মানে তিনবার আস্তাগফিরুল্লাহ পড়া। আমাদের প্রচলিত মোনাজাতের ধরন এটা নয়।

৩. মুয়াবিয়া রা. থেকে বর্ণিত,
أَنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ، إِذَا فَرَغَ مِنَ الصَّلَاةِ وَسَلَّمَ، قَالَ: لَا إِلَهَ إِلَّا اللهُ وَحْدَهُ لَا شَرِيكَ لَهُ، لَهُ الْمُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ وَهُوَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ
রাসূলুল্লাহ সা. নামায শেষ করে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ ওয়াহদাহু লা শারীকা লাহু... দোয়াটি পড়তেন। (সহীহ মুসলিম ১/৪১৪)

এছাড়াও বেশ কিছু দোয়া ও যিকির রাসূল সা. থেকে বর্ণিত যে, এসবের ওপর তিনি নিয়মিত আমল করতেন।

এই সবগুলো হাদীসে নিত্যবৃত্ত অতীতকাল ব্যবহার করা হয়েছে। অর্থাৎ এগুলো রাসূল সা.-এর নিয়মিত আমল ছিল। রাসূল সা. যে দোয়া করতেন, তাও বর্ণিত আছে। তা আমাদের মতো অনির্ধারিত নয়। নির্ধারিত কিছু দোয়া করতেন। হাদীসের ভাষ্যে নিত্যবৃত্ত অতীতকাল ব্যবহার দেখে বোঝা যায়, নির্ধারিত কিছু দোয়াই রাসূল সা. নিয়মিত করতেন। অন্যদিকে মোনাজাতের হাদীসগুলোতে এই ধরনের শব্দ নেই। যদি ধরেও নিই রাসূল মোনাজাত করেছেন, তা তাঁর নিয়মিত আমল ছিল না।

এ-বিষয়ে কারো দ্বিমত নেই যে, ফরয নামাযের পর হাত তুলে সম্মিলত মোনাজাত মুস্তাহাব হলেও উত্তম ও সুন্নাহ হলো, হাদীস দ্বারা প্রমাণিত নির্দিষ্ট দোয়া ও যিকির পাঠ করা। যা সর্বসম্মতিক্রমে উত্তম তা ছেড়ে জায়েয বা সর্বোচ্চ মুস্তাহাবের জন্য অনলাইন-যুদ্ধের যৌক্তিকতা আমি বুঝতে পারছি না।

পুনশ্চ: অনেকে ভুল বুঝবেন না যেন। মোনাজাত করা যে সাওয়াবের কাজ, এ-ব্যাপারে কারো সন্দেহ নেই। একটি হাদীসের ভাষ্যমতে দোয়া করা সমস্ত ইবাদতের মুল। দোয়া করা নিয়ে কোনো তর্ক নেই। তর্ক হলো, ফরয নামাযের পরে হাত তুলে সম্মিলিতভাবে নিয়মিত মোনাজাত করা ও একে অনিবার্য মনে করা নিয়ে।

️ 


আহমদ মোস্তফা:  কুতুবুল আলম শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (হাফিযাহুল্লাহ) স্বীয় মুরীদদেরকে তরীকতের যে ছয়টি সবক দিয়ে থাকেন। তা সংক্ষিপ্তভাবে উল্লেখ করা হলো :

১নং সবক : তাসবীহাতে সিত্তা বা ছয় তাসবীহ

ছয় তাসবীহ আদায়ের সময় সকাল-বিকাল (ফজর এবং মাগরিবের পর)

★ সুবহানাল্লাহ ১০০বার (سبحان الله) 
★ আলহামদুলিল্লাহ ১০০বার (الحمد لله) 
★ আল্লাহু আকবার ১০০বার (الله اكبر) 
★ লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ১০০বার (لا اله الا الله) 
★ ইস্তেগফার ১০০বার
استغفرالله الذي لاإله إلا هو الحي القيوم واتوب اليه، 
★ দরুদ শরীফ ১০০বার
اللهم صل على محمد وعلى آله محمد بعدد كل شيء معلوم لك، 
২ নং সবক : যিকরে ইসমে জাত

ইসমে জাত দ্বারা উদ্দেশ্য, লফয আল্লাহ। প্রতিদিন কমপক্ষে ১২ হাজার বার আল্লাহ আল্লাহ যিকির করবে। বেশির কোন সীমা নেই। আমাদের বুযুর্গানে দীন ১ লক্ষ ২৫ হাজার বার পর্যন্ত ইসমে জাতের যিকির আদায় করতেন। 
শোয়া-বসা, হাঁটা-চলা সর্বাবস্থায় এই সবক আদায় করা যায়। তবে নির্জনে বসে করলে অবশ্যই উপকার বেশি হবে।

৩ নং সবক : যিকরে পাঁচ আনফাস

পাঁচ আনফাস তথা নিঃশ্বাসের যিকির। এটা ২৪ ঘন্টার আমল। সর্বদা নিঃশ্বাস নেবার সময় খেয়াল করবে 'আল্লা' আর নিঃশ্বাস ছাড়ার সময় খেয়াল করতে হবে 'হু' দুইটা মিলে হবে 'আল্লাহু'। 
এই যিকির নিয়মিত ২-৩ মাস আদায় করলে নিঃশ্বাসের সাথে যিকির জারি হয়ে যাবে ইনশাঅাল্লাহ। তখন প্রতিদিন নিঃশ্বাসের মধ্যে ২৫ হাজারবার আল্লাহ আল্লাহ যিকির হয়ে যাবে। কারণ, একজন মানুষ স্বাভাবিক ভাবেই প্রতিদিন ২৫ হাজার বার নিঃশ্বাস নেয় ও ছাড়ে।

৪নং সবক : ১২ তাসবীহ (দোয়াজদাহ তাসবীহ)

বার তাসবীহ আদায়ের পদ্ধতি হল, শেষ রাতে ৪,৬,বা ৮ রাকাআত তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ে কেবলামুখী হয়ে বসবে। 
৩ বার সুরা ফাতেহা এবং ১২ বার সুরা ইখলাস ও দরুদ শরীফ পাঠ করে চার-তরীকার বুযুর্গানেদীনের জন্য ইসালে সাওয়াব করবে। তারপর আসন পেতে ডান পায়ের বৃদ্ধা আঙ্গুল দিয়ে বাম পায়ের মোটা রগকে চেপে ধরে বসবে।তবে বসার ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে, যেন পিঠ এবং কাঁধ বরাবর থাকে। বাঁকা যেন না হয়। দুই হাত দুই হাঁটুর উপর রাখবে। ডান হাতে ১০০দানার তাসবীহ থাকবে। কলবের দিকে মুতাওয়াজ্জু হয়ে 'লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ'-এর যিকির ২০০বার করবে। 'লা ইলাহা' বলার সময় খেয়াল করবে, আল্লাহ ছাড়া কোন মা'বুদ নেই।আল্লাহ ব্যতীত সবকিছুর মহাব্বত অন্তর থেকে বের করে পিঠের পিছনে নিক্ষেপ করলাম। আর' ইল্লাল্লাহ' বলার সময় ধ্যান করবে আল্লাহর মহাব্বত অন্তরের অন্তস্থলে জায়গা দিলাম। ২৫-৩০বার পর পর দরুদ পাঠ ও মোরাকাবার করবে। 
দরুদ শরীফ--
سيدنا مولانا محمد رسول الله صلى الله عليه وسلم، 
মোরাকাবা--
الله حاضري، الله ناظري، الله شاهدي، الله معي، 
৪০০ বার 'ইল্লাল্লাহ' এবং ৬০০বার 'আল্লাহু-আল্লাহ যিকির করবে। এই ১২০০বার মুতাকদ্দিমীন(পূর্ববর্তী) সুফিয়ায়ে কেরাম আদায় করতেন। (সেজন্য এই সবককে বার তাসবীহ বলা হয়।) 
আর মুতা-আখখিরীন (পরবর্তী) সুফিয়ায়ে কেরাম 'আল্লাহ' 'আল্লাহ' আরো ১০০বার বাড়িয়েছেন। (এ হিসেবে তেরো তাসবীহ ও বলা হয়।) প্রত্যেকটার মধ্যেই ২৫-৩০ বার পর পর একই নিয়মে দরুদ শরীফ এবং মোরাকাবা করবে।

৫ নং সবক : যিকরে কলবী

যিকরে কলবী তথা কলবের (অন্তরের) যিকির। কলবের স্থান হলো, বাম স্তনের ২-৩ আঙুল নিচে। কলব সব সময় হরকত-নড়াচড়া করে। নির্জনে বসে কলবের দিকে মুতাওয়াজ্জু হয়ে ধ্যান করবে যে, আমার অন্তর আল্লাহর মহব্বত-ভালবাসায় বেচাইন (অস্থির) হয়ে গেছে। আমার অন্তর থেকে যিকির হইতেছে 'আল্লাহ' 'আল্লাহ' এভাবে প্রতিদিন কমপক্ষে আধা ঘন্টা সময় এ সবকটি আদায় করবে। সবকটি আদায়ের উত্তম সময় হল, ফজরের পর ছয় তাসবীহ আদায় করে। অন্য সময়েও করা যাবে।

৬ নং সবক : মোরাকাবায়ে মাইয়্যাতে ইলমিয়্যা

মোরাকাবায়ে মা'ইয়্যাতে ইলমিয়্যা তথা ইলমদের ই'তেবারে আল্লাহ আমার সাথে আছেন-এই ধ্যান করা। জাতের ই'তেবারে নয়। অর্থাৎ আমি যা করি আল্লাহ তাআলা দেখেন, শোনেন, জানেন। আমার কোনো বিষয় আল্লাহ তাআলার ইলমের বাহিরে নয়। বরং সর্বাবস্হায় আমার যাবতীয় কাজ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা অবগত আছেন। এ সবক আদায়ের সময় হলো, ইশার নামাজের পর ঘুমের আগে। কলবের দিকে মনোনিবেশ করে আয়াত পড়বে আর ধ্যান করবে। 
وهومعكم أينماكنتم 
'আল্লাহ তোমাদের সাথে আছেন তোমরা যেখানেই থাকো না কেন।'

এখানে তোমরা দ্বারা উদ্দেশ্য আমরা অর্থাৎ আমরা যেখানেই থাকি না কেন আল্লাহ তাআলা আমাদের সাথেই আছেন। এ আয়াতে অর্থের দিকে লক্ষ্য করে প্রতিদিন কমপক্ষে ১ ঘন্টা মোরাকাবা করবে। মাঝে মধ্যে 
الله حاضري،الله ناظري، الله شاهدي، الله معي، 
দিলে দিলে এ কালিমাগুলোর অর্থের দিকে খেয়াল করবে।

বিশেষ প্রতিবেদক: ভোলার মনপুরায় শ্রীরাম নামে এক যুবক মহানবী (সা.) ও বিবি আয়শাকে জড়িয়ে কটূক্তিমূলক ফেসবুকে পোস্ট শেয়ারকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও মুসল্লিদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ১০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার জুম্মার পর মনপুরা উপজেলার রামনেওয়াজ জামে মসজিদের মুসল্লি, কাউয়ারটেক কিল্লার পাড় জামে মসজিদের মুসল্লি ও চৌমুহনী জামে মসজিদের মুসল্লিরা রামনেওয়াজ চৌমুহনী বাজারে মিছিলসহ একত্র হয়ে প্রতিবাদ করে।

এ সময় চৌমুহনী বাজারে শ্রীরাম দাসের  দোকান ঘর ভাঙচুর করে উত্তেজিত কিছু যুবক। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাধা দিলে উত্তেজিত মানুষের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে পুলিশ ২০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

এদিকে ফেইসবুকে মহানবী ও বিবি আয়েশাকে নিয়ে কটূক্তিমূলক পোস্ট শেয়ার দেওয়া যুবক শ্রীরামকে গ্রেপ্তার করেছে মনপুরা থানা পুলিশ। শ্রীরাম মনপুরা উপজেলা রামনেওয়াজ ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার দুলাল চন্দ্র দাসের ছেলে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেন।

পুলিশের ছোড়া গুলিতে মনপুরা উপজেলার বাসিন্দা জহির, সাইফুল, করিম, আল আমিন, রাহাত ও ছোট করিম আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ঘটনার তিন ঘণ্টা পর আবারও মাগরিবের নামাজের পর হাজিরহাট ইউনিয়নে ফকিরহাটে কয়েকটি দোকানে উত্তেজিত জনতা ভাঙচুর করে বলে জানা যায়।

একাধিক সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার মনপুরা উপজেলার রামনেওয়াজ ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার দুলাল দাসের ছেলে শ্রীরাম চন্দ্র দাস তার ফেসবুকে মহানবী (সা.) ও বিবি আয়শাকে নিয়ে কটূক্তিমূলক মন্তব্যের একটি পোস্ট শেয়ার করে। তা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দেয়।

শুক্রবার সকালে উপজেলার ইমামদেরকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শ্রীরামের শাস্তি নিশ্চিত করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। পরে শ্রীরামকে আটকে দেরি হলে শুক্রবার জুমার পর রামনেওয়াজ বাজার জামে মসজিদের মুসল্লি, কাউয়ারটেক কিল্লারপাড়া জামে মসজিদের মুসল্লি ও চৌমুহনী বাজার জামে মসজিদের মুসল্লিরা এই ঘটনার প্রতিবাদে মিছিলসহকারে মনপুরার রামনেওয়াজ বাজারে একত্রিত হয়ে প্রতিবাদ করে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই যুবককে আটকসহ উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা করে। একপর্যায়ে কিছুসংখ্যক উত্তেজিত জনতা শ্রীরামের চৌমুহনী বাজারে ভাড়া দেয়া দোকান ঘরে হামলা করলে পুলিশ বাধা দেয়।

পরে পুলিশের সঙ্গে মুসল্লিদের ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ বাঁধে। এই ঘটনায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ ২০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে। পুলিশের গুলিতে ১০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া য়ায়। আহতদেরকে মনপুরা হাসপাতালসহ স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মহানবী (সা.) ও বিবি আয়শা রাযি. কে জড়িয়ে কটূক্তিমূলক পোস্ট শেয়ার দেয়া শ্রীরাম নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এখন অবস্থা স্বাভাবিক আছে।

মনপুরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাস জানান, ফেসবুকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে মনপুরায় কিছুটা উত্তেজনা দেখা দেয়। শ্রীরাম নামে এ যুবককে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে প্রশাসন সজাগ দৃষ্টি রাখছে। এলাকাবাসী, ইমামদের ও প্রশাসকের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক চলছে। 

একাকী ইবাদতের মাধ্যমে শবে বরাত পালন ...
বিশেষ প্রতিবেদক: শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেছেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে দূরদূরান্ত থেকে হাটহাজারীতে ইতেকাফ করার উদ্দেশ্যে না আসার জন্য আমার খলিফা ও ভক্ত-মুরিদদের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।

আল্লামা শাহ আহমদ শফী আরো বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে আপনারা ইতেকাফের উদ্দেশ্যে হাটহাজারীতে না এসে নিজ নিজ এলাকার মসজিদে ইতেকাফ ও ইসলাহী মেহনত করুন। আল্লাহর দিকে রুজু হোন। আল্লাহর দিকে রুজু হওয়া ছাড়া এই চলমান মহামারী থেকে বাঁচার আর কোন উপায় নেই। বেশী বেশী তাওবা ইস্তেগফার করুন। আমার বাতানো তরীকতের ছয়টি অজিফা গুরুত্বসহ নিয়মিত পালন করুন। আমি নিজেও এবছর ইতেকাফ দিবো না।

আপনারা আমার জন্য এবং সারা বিশ্বের মুসলমানদের জন্য দোয়া করুন। বিশেষ করে চলমান মহামারী থেকে মুক্তির জন্য বিশেষ ভাবে আল্লাহর দরবারে দোয়া করুন।

দরুদ শরীফ : দুআ কবুলের গুরুত্বপূর্ণ ...
ডেস্ক: পাকিস্তানের সাবেক বিচারপতি, ফকিহুল আসর, মুফতি তাকি উসমানী দারুল উলুম করাচিতে মাহে রমজান বিষয়ক সেমিনারে বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন, রমজান শুধু তারাবি আর রোজা রাখার মাঝে যেন সীমাবদ্ধ না হয়। বরং রমজানে আরও দুটি কাজ গুরুত্বপূর্ণ, যেগুলো মেনে চললে মাসটি আমাদের জন্য সারাজীবনের খুশি আর আনন্দের মাধ্যম হতে পারে। পরকালে নাজাতের উসিলা হতে পারে।

[সে দুটি কাজের মধ্যে একটি হচ্ছে, এ নিয়ত করা যে আমি পবিত্র মাসটি তে কোনেও ধরনের গুনাহ করবো না। সব ধরনের গুনাহ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখবো। এমন কোনো কাজও করবো না যেগুলো গুনাহের দিকে নিয়ে যায়।

রমজানে মানুষ আল্লাহর জন্যেই খাবার খাওয়া পানি পান করা ছেড়ে দেয়। খাবার পানীয় আমাদের জন্য হালাল ছিলো, আমরা সেগুলো আল্লাহর জন্য হারাম করে নিয়েছি। শুধু একমাত্র আল্লাহ তায়ালার জন্য। আবার এমন খাবার বা কাজ যেগুলো আগের থেকেই হারাম সেগুলো যদি আমরা না ছাড়ি তাহলেও এ রমজানে আমাদের সফলতা সম্ভব নয়।

যেমন কেউ গীবত করলো, অথবা মিথ্য বললো। সেগুলোও তার জন্য হারাম। আমরা রোজা রাখলাম ঠিকই, কিন্তু মিথ্যা ছাড়লাম না। গীবত ছাড়লাম না। তাহলে তো আমাদের তাকওয়া অর্জন হলো না।

এমনকি কোনো নারীর দিকে তাকালো যেটা তারজন্য হারাম। তাহলে কীভাবে রমজানে কীভাবে আমাদের তাকওয়া অর্জন হবে? কমপক্ষে আমরা সবাই এ ওয়াদা করতে পারি, এ রমজানে আমরা কোনও ধরেণের গুনাহ করবো না। কানে এমন কিছু শুনবো না যাতে গুনাহ হয়। মুখে এমন কিছু বলবো না যাতে গুনাহ হয়। হাতে এমন কিছু করবো না যাতে গুনাহ হয়।

আর সবচেয়ে বড় গুরুত্বের বিষয় হলো আমার মুখে যেন কোনও হারাম লোকমা না যায়, হারাম খাদ্য না যায়। এটা কেমন কথা, আমি সারাদিন আল্লাহর জন্য রোজা রাখলাম আর ইফতার করলাম হারাম খাবার দিয়ে। ধোকার টাকা দিয়ে, সুদের টাকা দিয়ে। তাহলে কিভাবে আমার রোজা আল্লাহর দরবারে কবুল হবে।

আল্লাহ আমাদের সবাইকে এ ইবাদতের মাসে বেশি বেশি ইবাদত করে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের তাওফিক দান করুন। আমিন। 

সূত্র: ইন্টারনেট



মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী ও তারেকুল ইসলাম: আজ ঐতিহাসিক ৫ মে। ২০১৩ সালের এই দিনে চট্টগ্রামের দারুল উলুম হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম ও সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেম শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে ‘হেফাজতে ইসলাম’ নামক একটি অরাজনৈতিক সংগঠন ইসলামবিদ্বেষী ও নবী সা:-এর অবমাননাকারী ব্লগারদের শাস্তির দাবিতে গণ-আন্দোলন গড়ে তোলে। তারা দাবি আদায়ের জন্য শান্তিপূর্ণ ‘ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি’ পালন করে শাপলা চত্বরে জমায়েত হন। কিন্তু সরকার হেফাজতের মূল দাবি আমলে না নিয়ে সেদিন মধ্যরাতে ওই এলাকার বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করে অন্ধকারে কাপুরুষের মতো নিরস্ত্র লাখ মানুষের ওপর বর্বরোচিত অভিযান পরিচালনা করে। এই ক্র্যাকডাউনে অনেক নিরীহ আলেম-হাফেজ-মুফতি-মুহাদ্দিস-কারি ও ধর্মপ্রাণ মুসলমান শাহাদতবরণ করেন বলেই জনগণের বিশ্বাস।

যৌথবাহিনীর গুলিতে আহতের সংখ্যা ১০ হাজারেরও বেশি। এখনো আহত অনেকে বুকে ও শরীরে বুলেট বহন এবং অন্ধত্ব ও পঙ্গুত্ব বরণ করে যন্ত্রণাকাতর জীপন যাপন করছেন। সরকার কর্তৃক বহু লাশ গুম করার অভিযোগ উঠেছিল। পরে হামলা-মামলা ও পেশিশক্তির জোরে হেফাজতের নিরীহ নেতাকর্মীদের হয়রানি ও জেল-জুলুমের মাধ্যমে এবং নানা কৌশল ও হুমকি-ধমকি দিয়ে কোণঠাসা করার চেষ্টা করা হয়। এমনকি সরকারের নানামুখী চাপে শাপলা চত্বরে নিহতদের সঠিক সংখ্যা এবং তাদের সম্পর্কে বস্তুনিষ্ঠ তথ্যাদি সংগ্রহের ক্ষেত্রেও হেফাজতকে চরমভাবে বাধা দেয়া হয়। নিবর্তনমূলক রাষ্ট্রযন্ত্রের চরম দমনপীড়ন সত্ত্বেও হেফাজতে ইসলাম শানে রেসালাত সম্মেলন, ওয়াজ-মাহফিল, তাফসির মাহফিল ও সিরাতুন্নবী সা: সম্মেলনের মাধ্যমে দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে। এসব কর্মসূচিতে বিপুল জনসমাগম লক্ষণীয় ।

একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশে মানবাধিকার ও বাকস্বাধীনতা হরণ এবং ইসলামপন্থীদের কণ্ঠরোধ করা হয়েছে। সবচেয়ে বড় উদাহরণ, শাপলা চত্বরে নিহতদের সংখ্যা প্রকাশ করার ‘অপরাধে’ অধিকার-এর সেক্রেটারি আদিলুর রহমান শুভ্রকে গ্রেফতার করা হয়। শাপলা চত্বরের গণহত্যার ব্যাপারে সরকার মূলত দেশবাসী ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অন্ধকারে রাখতে চায়; কিন্তু ইনশাআল্লাহ সত্য এক দিন স্বমহিমায় উদ্ভাসিত হবেই।

হেফাজতের মূল দাবির সত্যতা প্রমাণিত হওয়া সত্ত্বেও মহান আল্লাহ পাক ও তাঁর রাসূল সা:-এর অবমাননাকারী, ইসলামবিদ্বেষী ব্লগারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি সরকার আদৌ মেনে নেয়নি। গণ-আন্দোলনের মুখে কয়েকজন চিহ্নিত ব্লগারকে গ্রেফতারের নাটক সাজালেও তাদের শাস্তি না দিয়ে পরে সুযোগমতো জামিনে ছেড়ে দেয়া হয়। এর পরিণতিতে ‘সুবহানাল্লাহ’ নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা করা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, ধর্মদ্রোহী লতিফ সিদ্দিকী, ইসলামের সুদ তথা রিবা নিয়ে অপব্যাখ্যাদানকারী ও কওমি মাদরাসাবিরোধী অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুুহিত, পর্দাবিদ্বেষী সমাজকল্যাণমন্ত্রী মহসিন আলীরা খোদ রাষ্ট্রের কোটর থেকেই একে একে স্বরূপে বেরিয়ে এসেছেন। যদি সরকার হেফাজতের দাবি আমলে নিয়ে ইসলামবিদ্বেষী ব্লগারদের বিচার করত, তাহলে কোনো মন্ত্রী বা নেতা ইসলামি মূল্যবোধ ও তৌহিদি জনতার ঈমান-আকিদায় আঘাত করে কথা বলার সাহস পেতেন না।

হেফাজতে ইসলাম মুসলমানদের ঈমান-আকিদা রক্ষার লড়াইয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে থাকে। ঈমান-আকিদার সঠিক চর্চা, সংরক্ষণ ও লালন করা না হলে মানবজীবন অভিশপ্ত ও নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি হয়। ঈমান-আকিদাই হচ্ছে মুসলিম জীবনের সামগ্রিক ব্যবস্থার মূলভিত্তি। শুধু কালেমায়ে শাহাদাত পড়ে মুসলিম নাম ও বেশ ধারণ করলেই ঈমান-আকিদার শর্তগুলো পূরণ হয় না। আল্লাহর একক অস্তিত্বের প্রতি নিরঙ্কুশ বিশ্বাস ও তাকওয়া এবং একইসাথে মানব জাতির জন্য আল্লাহ প্রেরিত নির্দেশনামূলক সামগ্রিক জীবনব্যবস্থা তথা কুরআন ও রাসূল পাক সা:-এর সুন্নাহ অনুসরণ করে জীবন যাপন করাই হলো ঈমান-আকিদা মোতাবেক চলা। এখান থেকে বিচ্যুত হলেই ইহজীবনে বিপর্যয় নেমে আসতে বাধ্য; কেননা ঈমান-আকিদার প্রতি উদাসীনতা এবং এর অনুপস্থিতি সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে বেইনসাফি ও জুলুম কায়েম হওয়ার পথ সুগম করে দেয়। ঈমান-আকিদা সার্বিক ন্যায় ও ইনসাফের কথা বলে। শুধু ভোগের মধ্যেই নয়, ত্যাগেও যে সুখ আছে সেটার কথাও স্মরণ করিয়ে দেয়। ঈমান-আকিদা হচ্ছে মহান প্রভুর কাছে দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতার ব্যাপারে উন্মুখ থাকা। ব্যক্তির স্বেচ্ছাচারিতা ও উন্নাসিকতা দমন করার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখে এটা। আধ্যাত্মিক সঞ্জীবনী ও অন্তরের আত্মশুদ্ধি নিশ্চিত করা সম্ভব না হলে শত আইন-কানুনেও মানুষের সহজাত রিপুর তাড়না ও পঞ্চ ইন্দ্রিয় সংযত করা অসম্ভব। মুসলমানদের আধ্যাত্মিক চেতনা তথা তাকওয়ার ব্যাপারে সচেতনতা সৃষ্টির মূল নিয়ামক হলো ঈমান-আকিদা। ইসলাম গ্রহণের বা মুসলমান হওয়ার মূল শর্তই হলো ঈমান-আকিদার সর্বব্যাপী চর্চা ও সংরক্ষণ করা। আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে হেফাজতে ইসলাম ধর্মপ্রাণ জনতাকে সাথে নিয়ে সমকালীন ফিতনা এবং ভোগবাদী ও বস্তুবাদী অপশক্তির বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে ঈমান-আকিদার চর্চা ও সংরক্ষণের লড়াই করে যাচ্ছে।

জনগণ যখন ঈমান-আকিদার ব্যাপারে উদাসীন বা অসচেতন হয়ে পড়ে, সেই সুযোগে রাষ্ট্রক্ষমতায় জালিম শাসকের অধিষ্ঠান সম্ভব হয়- এটা এক ধরনের খোদায়ী অভিশাপ। আল্লাহর জমিনে বাস করে এবং তাঁর অপার নেয়ামত ভোগ করে বান্দা কর্তৃক অবাধ্যতা ও বিরোধিতা কখনোই আল্লাহ তায়ালা বরদাশত করেন না। ঈমান-আকিদা চর্চার ফলে শাসক ও শাসিত উভয়ের মধ্যেই তাকওয়া বা আল্লাহভীতি সৃষ্টি হয়, ফলে জনগণ যখন ঈমান-আকিদার চর্চা করে, তখন তাকওয়ার কল্যাণে শাসকের পক্ষেও জুলুম-শোষণের পথে পা বাড়ানো সম্ভব হয় না। তাই ঈমান-আকিদার চর্চা এবং এর রক্ষণাবেক্ষণের কর্তব্যকে হেফাজত রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনে অবশ্য পালনীয় মনে করে। বিপুল ত্যাগ স্বীকার এবং প্রাণদানের মাধ্যমে হেফাজতে ইসলাম ঈমান-আকিদা রক্ষার আপসহীন লড়াইয়ের পথ ধরে বাংলাদেশের রাজনীতিতে কায়েমি স্বার্থান্বেষী সব রাজনৈতিক শক্তির বিকল্প হিসেবে নিজের সম্ভাবনাকে ঐতিহাসিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

হেফাজতে ইসলাম ভুঁইফোঁড় কোনো সংগঠন নয়। হেফাজতের উত্থান এবং শাপলা চত্বরে অপরিমেয় ত্যাগ স্বীকারÑ ইতিহাস-বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনাও নয়; অধিকন্তু উপমহাদেশের ওলামায়ে কেরামের বিশাল এক সংগ্রামী ও আত্মদানের ইতিহাসের ধারাবাহিকতারই নব উপাখ্যান সৃষ্টি হয়েছে। স্বেচ্ছাচারী রাষ্ট্রশক্তির বিরুদ্ধে মজলুম জনতার সঙ্ঘবদ্ধ সংগ্রামের প্রেরণা নিয়ে প্রতি বছর ঐতিহাসিক ৫ মে ফিরে আসে। এই প্রেরণা যুগে যুগে মানবিক ও নাগরিক মর্যাদা নিয়ে ঈমান-আকিদায় পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে বাঁচার তাগিদে সংগ্রামী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে বারবার উজ্জীবিত করে তুলবে।

শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের রক্ত ও প্রাণ বিসর্জন বৃথা যাবে না ইনশাআল্লাহ। ইতিহাসের পর্যালোচনায় দেখা যায়, পলাশীর বিপর্যয়ের পর একের পর এক ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনগুলো, তথা ফরায়েজী আন্দোলন, তিতুমীরের বাঁশের কেল্লার ধ্বংস, বালাকোটের শাহাদতবরণ, রক্তাক্ত সিপাহি বিদ্রোহ কোনোটিই শেষ বিচারে ব্যর্থ হয়নি, বরং উপমহাদেশের ওলামায়ে কেরামের এই সুদীর্ঘ রক্ত, আত্মদান ও শাহাদতের পথ ধরেই ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শক্তির কবল থেকে ভারতকে স্বাধীন করা সম্ভব হয় এবং যথাক্রমে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ সৃষ্টির পথ সুগম হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে মুসলমানদের জন্য আলাদা রাষ্ট্র তথা পাকিস্তান বানানো গেলেও সেটা ন্যায় ও ইনসাফভিত্তিক একটি ইসলামি সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারেনি। ঠিক তেমনই পাকিস্তানের অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক জুলুম-শোষণের নিগড় থেকে মুক্ত হওয়ার লক্ষ্যে ৯ মাসের রক্তাক্ত মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অভ্যুদয় হলেও এখানে মানবাধিকার, নাগরিক অধিকার ও ন্যায়-ইনসাফ নিশ্চিত করে একটি শোষণ-বঞ্চনাহীন সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থা গড়ে তোলার স্বপ্ন অপূর্ণ রয়ে গেছে। তবে হেফাজতের রক্ত ও প্রাণ বিসর্জনের বদৌলতে এ দেশে শোষক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নিপীড়িত সাব-অলটার্নরা ঈমানি শক্তিতে বলীয়ান হয়ে রুখে দাঁড়ানোর হিম্মত অর্জন করেছে।
বাংলাদেশে বিশুদ্ধ কুরআন-হাদিস ও ইসলামি জ্ঞানচর্চার কেন্দ্র হলো কওমি মাদরাসা; আর এই কওমি মাদরাসার আলেম ও ছাত্র-শিক্ষকরাই ন্যায়-ইনসাফ ও শান্তির পক্ষে এবং সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি, জুলুম ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে কুরআন-হাদিসের বাণী প্রচার করে যাচ্ছেন। তারাই শাহ ওয়ালীউল্লাহর সংগ্রামী আদর্শ ও চেতনা ধারণ করে অপশক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ-সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন।

১৮৫৭ সালের সিপাহি বিপ্লবের পর উপমহাদেশে আলেম সমাজের ব্রিটিশবিরোধী সশস্ত্র প্রতিরোধযুদ্ধ কিছুটা স্তিমিত হলেও তারা ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা-চেতনা, ইসলামি শিক্ষা, মূল্যবোধ ও দ্বীনি সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখার লক্ষ্যে ভারতবর্ষের বিভিন্ন স্থানে মাদরাসা স্থাপনের কাজে ব্যাপৃত হন। হুজ্জাতুল ইসলাম মাওলানা কাসেম নানতুবী (রহ:) ১৮৬৬ সালে ওলামায়ে কেরামের বহুল কাক্সিক্ষত প্রথম মাদরাসা বিশ্ববিখ্যাত দারুল উলুম দেওবন্দ প্রতিষ্ঠা করেন। উল্লেখ্য, মাওলানা কাসেম নানতুবী (রহ:) সিপাহি বিদ্রোহের সময় ঐতিহাসিক থানাভবন ফ্রন্টে ইংরেজদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র যুদ্ধে নেতৃত্ব দেন। পরে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। তিনি সুকৌশলে গ্রেফতার এড়িয়ে তার কার্যক্রম গোপনে অব্যাহত রাখেন। পর্যায়ক্রমে এই ধারার অজস্র মাদরাসা সমগ্র উপমহাদেশে গড়ে ওঠে। বাংলাদেশে এগুলো ‘কওমি মাদরাসা’ নামে পরিচিত। বিশেষত চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকায় বাংলাদেশের বৃহত্তম কওমি মাদরাসা তথা দারুল উলুম হাটহাজারী মাদরাসা ১৮৯৬ সালে স্থাপিত হয়। এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও সর্ববৃহৎ কওমি মাদরাসা। এই মাদরাসার বর্তমান মুহতামিম শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (দা.বা.)। তিনি দেওবন্দ মাদরাসার সাবেক শায়খুল হাদিস, আওলাদে রাসূল সা: সাইয়েদ হোসাইন আহমদ মাদানীর একজন সুযোগ্য ছাত্র ও শিষ্য এবং আধ্যাত্মিক জগতে তার খেলাফত লাভ করেছেন।

শায়খুলহিন্দ মাওলানা মাহমুদুল হাসানের ইন্তেকালের পর দেওবন্দ থেকে পরিচালিত ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম ত্যাগী যোদ্ধা ছিলেন সাইয়েদ হোসাইন আহমদ মাদানী (রহ:)। অসহযোগ আন্দোলন থেকে শুরু করে ভারত স্বাধীন হওয়া পর্যন্ত মাওলানা মাদানীর সংগ্রাম অব্যাহত থাকে। দখলদার ইংরেজ রাজশক্তি কর্তৃক ১৯২১ সালের ২৬ ডিসেম্বর করাচির খালেকদিনা হলে এক নিবর্তনমূলক মামলার শুনানিতে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে মাওলানা মাদানী নির্ভীক চিত্তে বলেছিলেন : ‘‘ধর্মীয় উত্তেজনার ফলে ১৮৫৭ সালে ভারতে সর্বত্র যখন বিপ্লবের আগুন জ্বলে উঠেছিল, তখন রানী ভিক্টোরিয়া অর্থাৎ ইংরেজ সরকার ভারতীয়দেরকে যে প্রতিশ্রুতি ও ঘোষণা প্রচার করে তাদের সান্ত্বনা দিয়েছিলেন, তাতে উল্লেখ ছিল, ‘কারো ধর্মের ওপর কোনো হস্তক্ষেপ করা হবে না, বরং ধর্মীয় বিষয়ে দেশবাসীর পূর্ণ স্বাধীনতা থাকবে।’ ব্রিটিশ পার্লামেন্টেও তা স্বীকৃত হয়েছিল। এমনকি পরবর্তীকালে সপ্তম অ্যাডওয়ার্ড এবং পঞ্চম জর্জও এ ঘোষণা সমর্থন করেছিলেন। কিন্তু বর্তমান সরকার যদি রানী ভিক্টোরিয়া, পরবর্তী সম্রাট ও তাদের পার্লামেন্টের প্রতিশ্রুতি ও ঘোষণার কোনো মর্যাদা না দেন আর ভারতবাসীর ধর্মীয় বিষয়ে হস্তক্ষেপকে সঙ্গত মনে করেন, তাহলে এ দেশের কোটি কোটি মুসলমানকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে যে, তারা মুসলমান হিসেবে বেঁচে থাকতে চায়, না নিরেট ইংরেজের বশংবদ প্রজা হিসেবে। ভারতের ৩৩ কোটি হিন্দুকেও অনুরূপ সিদ্ধান্ত নিতে হবে। মুসলমানদের তরফ থেকে ইংরেজ সরকারকে সতর্ক করে দিতে চাই, যদি সরকার ধর্মীয় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ অব্যাহত রাখে, তাহলে মুসলমানেরা নিজের ধর্ম রক্ষার খাতিরে জীবন উৎসর্গ করে দিতেও কিছুমাত্র ইতস্তত করবে না। আর এ জন্য আমিই সর্বাগ্রে জীবন উৎসর্গ করতে এগিয়ে আসব’’ (সূত্র : আজাদি আন্দোলনে আলেম সমাজের সংগ্রামী ভূমিকা, জুলফিকার আহ্মদ কিস্মতি, পৃ: ৪৬-৪৭)। বাংলাদেশের বর্তমান আওয়ামী সরকার বিগত ২০০৮ সালের নির্বাচনে কুরআন-সুন্নাহবিরোধী কোনো আইন পাস না করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার পর তারা আলেমসমাজ ও তৌহিদি জনতার বিশ্বাস ভঙ্গ করে একের পর এক কুরআন-সুন্নাহবিরোধী পদক্ষেপ নিয়েছে। ধর্মনিরপেক্ষতার নামে দেশকে ধর্মহীন করার উদ্দেশ্যে বিতর্কিত নারীনীতি ও শিক্ষানীতি প্রণয়ন, সংবিধানের মূলনীতি থেকে ‘মহান আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ বাক্যটি বাদ দেয়া, জঙ্গিবাদের ধুয়া তুলে আলেম-ওলামা গ্রেফতার, জেল-জুলুম ও হয়রানি, কওমি মাদরাসা বন্ধের প্রয়াস ইত্যাদি সবই ছিল তৌহিদি জনতার ঈমান-আকিদার জন্য চরম হুমকি। দীর্ঘ দিন ধরে অনলাইন মাধ্যমে গোপনে চলে আসা ইসলামবিরোধী কার্যক্রম রুখতে এবং নবী সা: ও ইসলাম অবমাননাকারীদের বিচারের দাবিতে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে হেফাজতে ইসলাম রাজপথে গণ-আন্দোলনের সৃষ্টি করে। শাপলা চত্বরে শহীদদের রক্ত কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ছিল না। তাই এই পবিত্র রক্তধারা বৃথা যাবে না ইনশাআল্লাহ। আমিরে হেফাজত আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেছিলেন, ‘শাপলা চত্বরের গণহত্যার বিচারের ভার আল্লাহর ওপর দিয়ে দিলাম। নিশ্চয়ই তিনি মজলুমের সাথে আছেন। জালিমরা একদিন নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। শাপলা চত্বরে শহীদদের রক্তের পথ বেয়েই এ দেশে একদিন ইসলামের বিজয় ঘটবে, ইনশাআল্লাহ।’ তিনি দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৌহিদি জনতাকে ধৈর্য ধারণ করতে বারবার আহ্বান জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, হেফাজতের এই আন্দোলনের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করে জাস্টিস আল্লামা ত্বকী উসমানী, ড. ইউসুফ আল কারজাভি, ভারতের দেওবন্দের মুহাদ্দিস ও জমিয়ত সভাপতি আল্লামা সৈয়দ আরশাদ মাদানীসহ বিশ্ব ওলামা যৌথ বিবৃতি দিয়েছিলেন।

বর্তমান সরকারের মন্ত্রীরা ইদানীং অব্যাহতভাবে ইসলাম ও ইসলামি বিধিবিধানের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক বক্তব্য প্রদান করে যাচ্ছেন। ইসলামের ফরজ বিধান হজ নিয়ে কটূক্তি এবং রাসূল সা:-এর নামে চরম অবমাননামূলক মিথ্যাচার, ইসলামে নিষিদ্ধ ‘সুদ’ নিয়ে আপত্তিকর অপব্যাখ্যা, পর্দাবিদ্বেষী বক্তব্য, কওমি মাদরাসার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় কারসাজি ইত্যাদি বর্তমান সরকারের ইসলামবিদ্বেষী অবস্থানকে আরো জোরালো করে তুলেছে।
(লেখাটি ২০১৫ সালে লিখিত বিশেষ কলাম)

লেখক : সাংগঠনিক সম্পাদক, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ

প্রবচন ডেস্ক: আজ ২৯ এপ্রিল বুধবার বাসা-বাড়িতে টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত তারাবীর নামার অনুসরণ করে ইক্তেদা না করার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে একটি প্রেস রিলিজ প্রকাশ করা হয়। 

ফাউন্ডেশনের অতিরিক্ত সচিব আনিস মাহমুদ সাক্ষরিত ওই প্রেস রিলিজে বলা হয়, সম্প্রতি কোন কোন টিভি চ্যানেলে তারাবীর নামায সম্প্রচারের মাধ্যমে ইমাম সাহেবকে অনুসরণ করে নিজ নিজ বাসা-বাড়িতে তারাবীর নামায আদায় করার বিষয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে মর্মে জানা যায়। ইসলামী শরীয়তের বিধান অনুযায়ী, জামাতে নামায আদায়ের ক্ষেত্রে কাতারের সংলগ্নতা (ইত্তেসাল) জামাত ও ইক্তেদা সহীহ হওয়ার অন্যতম প্রধান শর্ত এবং এটি মানা না হলে নামায সহীহ হবে না। তাই টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত তারাবীর নামাযের ইমাম সাহেবের তিলাওয়াত শুনে ও রুকু-সিজদার অনুসরণে নিজ নিজ বাসা-বাড়িতে ইক্তেদা করে তারাবীহ নামাজ আদায় করা হলে তা কোনভাবেই শরীয়তসম্মত হবে না মর্মে বিশিষ্ট মুফতি ও আলেমগণ মতামত প্রদান করেছেন।

বিষয়টি অনুধাবন করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি পরিহারকল্পে টিভি চ্যানেলে তারাবী নামাযসহ অন্যান্য নামায সম্প্রচার হতে বিরত থাকার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট সকলকে বিশেষভাবে অনুরােধ করা হলাে।

-কেএইচ




বিষয়: তারাবীর নামায নিয়ে একটি বিতর্ক ও তার অবসান

আলোচক:
মুফতি জসিম উদ্দীন (হাফি.),
সিনিয়র মুহাদ্দিস, দারুল উলুম হাটহাজারী

মাওলানা আশরাফ আলী নিজামপুরী

বছরে এক মাস রমজানের রোজা ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি স্তম্ভের একটি। ইসলামি শরিয়তে সুবহে সাদেক থেকে সূর্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত পানাহার এবং নফসের কুমন্ত্রণা ও প্রবৃত্তিবাসনা পূর্ণ করা থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকাকেই রোজা বলা হয়।

প্রত্যেক মুসলমান জ্ঞান, প্রাপ্তবয়স্ক, পুরুষ-নারী, যার রোজা রাখার মত শক্তি রয়েছে- তার উপর রোজা রাখা ফরজ। মান্নত, কাযা এবং কাফ্ফারার রোজাও ফরজ। এছাড়া বাকি সব রোজা নফল। যা রাখলে সাওয়াব পাওয়া যাবে, না রাখলে কোন গুনাহ হবে না। তবে মনে রাখতে হবে- রমজানের ঈদের দিন, কোরবানির ঈদের দিন এবং কোরবানির ঈদের পরের তিন দিন, সর্বমোট পাঁচ দিন রোজা রাখা হারাম।

সর্বাবস্থায় ঘরে বসে এই দোয়া বেশি বেশি করে পাঠ করি-
حسبنا الله ونعم الوكيل نعم المولا ونعم النصير
উচ্চারণ- “হাসবুনাল্লাহু ওয়া নি’মাল ওয়াকিল, নি’মাল মাওলা ওয়া নি’মান নাসির”।
এ বছরের রোজা সারা পৃথিবীর মুসলমানরা অত্যন্ত স্পর্শকাতরভাবে আদায় করতে যাচ্ছে। কোভিড-১৯ বা করোনা নামক ভাইরাসে যখন সারা পৃথিবী আক্রান্ত, ক্ষতিগ্রস্ত ও বিপদগ্রস্ত, ঠিক এমন সময় এসে গেলো পবিত্র মাহে রমজান।

এই রমজান মাসে রোজা অবস্থায় আমরা বেশি বেশি ইবাদত, তিলাওয়াত ও দান-সদকা করব এবং মহান আল্লাহর দিকে ফিরে আসার চেষ্টা করব। আল্লাহ তাআলা ছাড়া এই মহামারি থেকে কেউ আমাদেরকে রক্ষা করতে পারবে না।

পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ঘরে পড়বো না মসজিদে পড়বো? জুমার নামাজ মসজিদে পড়বো না ঘরে জুমার স্থলে জোহরের নামায আদায় করবো? তারাবিহ মসজিদে পড়বো না ঘরে? ইফতার মসজিদে না ঘরে? এ সকল প্রশ্ন সিয়াম সাধনার এই মাসে পরিহার করে যার যেখানে সুযোগ হয় মসজিদে বা ঘরে এ সকল ইবাদত আদায় করার চেষ্টা করব।

এই মহামারি ও দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় ঘরে তারাবিহর নামাজ আদায় করলে নামাজ হবে না, জুমার দিনে জুমার নামাজের স্থলে জোহরের নামায ঘরে আদায় করে নিলে নামাজ আদায় হবে না, পাঁচ ওয়াক্ত নামায ঘরে আদায় করলে নামায আদায় হবে না; এমন ফতওয়া এই পর্যন্ত কেউ দেয়নি।

সুতরাং ‘মসজিদ খোলা থাকবে, নামাজ চলবে, জুমা চলবে, ইতিকাফ চলবে। সরকার নয় পৃথিবীর কোন শক্তি বাধা দিতে পারবে না।’ এ সকল দায়িত্বহীন উদ্দেশ্য প্রণোদিত, আবেগী ও রাজনৈতিক বক্তব্য পরিহার করতে হবে।

কারণ, বাংলাদেশ মুসলিম অধ্যুষিত দেশ, মসজিদ-মাদরাসার দেশ, ওলামা-মাশায়েখদের দেশ। মসজিদ বন্ধ করতে হবে, নামাজ চলবে না, জুমা চলবে না, ইতিকাফ চলতে পারে না, মসজিদে ইফতার করতে পারবে না- এধরণের কথাতো এই পর্যন্ত কেউ বলেননি। বলার সাহসও নেই।

তাই আসুন, স্বাস্থবিধি ও অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ মেনেই ইবাদত ও তিলাওয়াত জারি রাখি। তাতে পরিপূর্ণ সাওয়াবের আশা করা যায়। কাদা ছোঁড়াছুড়ি না করে তাওবা ও সিয়াম সাধনার মাধ্যমে  এই মাসে আমরা আল্লাহর দিকে ফিরে আসি। এই মাসেই দুর্দিন কেটে যাবে, ইনশাআল্লাহ।

কুরআন কেন নাজিল হলো?, কোরআন কেন নাজিল ...

মুফতি রেজাউল করীম আবরার

ইমাম শাফেয়ি রাহিমাহুল্লাহ যখন কুফায় যেতেন, তখন নামাজে রফয়ে ঈদাইন করতেন না৷ কারণ জিজ্ঞাসা করলে তিনি বললেন, ইমাম আবু হানিফার সম্মানার্থে করি না৷
শাহ ওয়ালিউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলবি রাহিমাহুল্লাহ "আল ইনসাফ" নামে একটি গ্রন্থ রচনা করেছন৷ সেখানে তিনি জোরালোভাবে একটি বিষয়ে আলোচনা করেছন৷ যে এলাকায় একটি সুন্নাহ প্রচলিত আছে, সে এলাকায় গিয়ে যদি একই বিষয়ে ভিন্ন আরেকটি সুন্নাহ থাকে, সে সুন্নাহর দাওয়াত প্রদান করবে না৷ কারণ, এরদ্বারা মানুষের মাঝে ফিতনা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে৷
নফল নামাজে দেখে কুরআন পড়ার বিষয়টি আয়েশা রা. এর গোলাম জাকওয়ান থেকে বর্ণিত হয়েছে৷ তিনি মুসহাফ দেখে রমজানে পড়িয়েছিলেন৷
হাদিসে নামাজের ব্যাপারে একটি মূলনীতি বর্ণিত হয়েছে৷ আমাদের দেশের মডারেট শায়খরা বলাবলি করেন, পুরুষ এবং মহিলার নামাজে কোন পার্থক্য নেই৷ দলিল হিসেবে একটি হাদিস পেশ করেন৷ রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,
صلوا كما رئيتموني أصلي
অর্থাৎ তোমরা নামাজ পড়ো যেভাবে আমাকে নামাজ পড়তে দেখো৷ (বুখারি: হাদিস ন ১০৩৬)

মডারেট শায়খদের জিজ্ঞাসা করা দরকার যে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তো জীবনে হাজার হাজার রাকআত নফল নামাজ পড়েছেন৷ তিনি কী কখনো কোন নামাজে কুরআন শরিফ দেখে তেলাওয়াত করেছেন?
তারাবিহ বিশ রাকঅাত উমর রা. এর সুন্নাহ বলে এড়িয়ে যান, অথচ ইবনে তাইমিয়া, ইবনে আবদুল বার মালেকি, ইবনে কুদামা মাকদেসি রাহিমাহুমুল্লাহ এর বক্তব্য অনুযায়ী বিশ রাকআত তারাবিহ সকল সাহাবির ইজমা দ্বারা প্রমাণিত৷ তারাবির ক্ষেত্রে সকল সাহাবির ইজমা বাদ দিয়ে দেন, অাবার নিজেদের সুবিধার জন্য রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং খুলাফায়ে রাশেদিনের আমল বাদ দিয়েদিয় আয়েশা রা. এর হাদিসের উপর আমল করে বলেন, নামাজে কুরআন দেখে পড়া যাবে!
সনদের দিক থেকে দুর্বল হলেও ইবনে আব্বাস রাযি. বর্ণনা করেন,
: نَہَانَا أمیرُ المُوٴمِنِیْنَ عُمَرُ رضی اللّٰہ عنہ أَن یَوٴُمَّ النَّاسَ فِي الْمُصْحَفِ، وَنَہَانَا أَن یَّوٴُمَّنَا اِلَّا الْمُحْتَلِمُ․
অর্থাৎ আমিরুল মুমিনিন উমর রা. রাযি. ইমাম সাহেবকে নামাজে কুরআন দেখে পড়তে নিষেধ করেছেন৷ কিতাবুল মুসহাফ, ইমাম আবু দাউদ লিখিত, হাদিস নং ১৮৯)
আচ্ছা, উমর রা. কে শয়তান প্রচণ্ড ভয় করত৷ আপনারাও কেন তাকে এত ভয় পান? বিশ রাকআত তারাবিহ উমর রা. এর সুন্নাহ বলে কমিয়ে ফেলেন! আবার উমর রা. এর মতের অনুসরণ না করে বলেন, নফল নামাজে কুরআন দেখে পড়া যাবে?
কাতাদা রাহিমাহুল্লাহ বিখ্যাত তাবেয়ি সাঈদ ইবনুল মুসায়্যিব থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন,
إِذَا کَانَ مَعَہُ مَا یَقُوْمُ بِہِ لَیْلَہُ رَدَّدَہُ وَلاَ یَقْرَأُ فِي الْمُصْحَفِ
অর্থাৎ কেউ যদি কিয়ামুল লাইলে পড়ার মতো সামান্য কুরআন মুখস্থ থাকে, তাহলে সেটা বারবার পড়বে৷ তারপরও কুরআন দেখে পড়বে না৷
লাইস রাহিমাহুল্লাহ মুজাহিদ রাহিমাহুল্লাহ এর ব্যাপারে বলেন,
أنَّہُ کَانَ یَکْرَہُ أَنْ یَّتَشَبَّہُوْا بِأَہْلِ الْکِتَابِ یَعْنِيْ أَنْ یَّوٴُمَّہُمْ فِي الْمُصْحَفِ
অর্থাৎ আহলে কিতাবদের সাথে সাদৃশ্য রেখে তিনি নামাজে কুরআন দেখে পড়াকে মাকরুহে তাহরিমি বলেছেন৷
আমাশ ইবরাহিম নাখাঈ থেকে বর্ণনা করেন,
کَانُوْا یَکْرَہُوْنَ أَنْ یَّوٴُمَّ الرَّجُلُ فِي الْمُصْحَفِ کَرَاہِیَةً شَدِیْدَةً أَن یَّتَشَبَّہُوْا بِأَہْلِ الْکِتَابِ“
অর্থাৎ সাহাবায়ে কেরাম নামাজে কুরআন দেখে পড়াকে মারাত্মক অপছন্দ করতেন আহলে কিতাবদের সাথে সাদৃশ্য হয়ে যাওয়ার কারণে৷ (বক্তব্যগুলো ইমাম আবু দাউদ কিতাবুল মাসাহিফে উল্লেখ করেছেন৷ হাদিস নং ১৮৯, ১৯০, ১৯১)

খতিবে বাগদাদি রাহিমাহুল্লাহ তারিখে বাগদাদ এ আম্মার বিন ইয়াসির রাযি. এর আছার উল্লেখ করেছেন৷
: عَنْ عَمَّارِ بْنِ یَاسِرٍ کَانَ یَکْرَہُ أَن یَّوٴُمَّ الرَّجُلُ النَّاسَ بِاللَّیْلِ فِيْ شَہْرِ رَمَضَانَ فِي الْمُصْحَفِ ہُوَ مِنْ فِعْلِ أَہْلِ الْکِتَابِ
অর্থাৎ আহলে কিতাবদের সাথে সাদৃশ্য হয়ে যাওয়ার কারণে রমজানের রাতের নামাজে কুরআন দেখে ইমামতি করাকে তিনি মাকরুহ বলেছেন৷ (তারিখে বাগদাদ: ৮/১২০)
আরও অনেক বক্তব্য নকল করা যাবে৷ বাকি থাকল আয়শা রাযি. এর হাদিসের কথা৷ এ হাদিসের ব্যাপারে খোদ মডারেট শায়খদের মান্যবর নাসির উদ্দিন আলবানি রাহিমাহুল্লাহ বলেন,
وما ذکر عن ذکوان حادثة عین لا عموم لہا
অর্থাৎ জাকওয়াম এর ঘটনা একটি বিশেষ ঘটনা৷ এটা ব্যাপক বিষয় নয়৷ (ফাতহুর রাহমান: ১২৩)

ইমাম কাসানি রাহিমাহুল্লাহ বলেন,
وأما حدیث ذکوان فیحتمل أن عائشة ومن کان من أہل الفتوی من الصحابة لم یعلموا بذلک وہذا ہو الظاہر بدلیل أن ہذا الصنیع مکروہ بلا خلاف ولو علموا بذلک لما مکنوہ من عمل المکروہ في جمیع شہر رمضان من غیرحاجة، ویَحْتَمِلُ أن یکون قول الراوي کان یوٴم الناس في شہر رمضان وکان یقرأ من المصحف إخبارا عن حالتین مختلفین أي کان یوٴم الناس في رمضان وکان یقرأ من المصحف في غیر حالة الصلاة

অর্থাৎ সম্ভবত আয়েশা রাযি. সে বিধান জানতেন না৷ জানলে তিনি এমনটা করতেন না৷ অথবা বর্ণাকারীর কথা দ্বারা এটাও উদ্দেশ্য হতে পারে যে, তিনি রমজানের দুটি অবস্থা বর্ণনা করেছেন৷ তিনি রমজানে ইমামতি করতেন এবং নামাজের বাহিরে কুরআন দেখে পড়তেন৷ (বাদায়িউস সানায়ে: ২/১২৩)
ইমাম আইনি রাহিমাহুল্লাহও একই ধরণের বক্তব্য দিয়েছেন৷ তাদের উভয়ের কথা আরেকটি আছার দ্বারা শক্তিশালী হয়৷ হাফেজ ইবনে হাজার আসকালানি রাহিমাহুল্লাহ আয়শা রাযি. থেকে এ সংক্রান্ত একটি আছার নকল করেছেন৷ সেখানে কুরআন দেখে পড়ার কথা নেই৷
عن ابن أبي ملیکة أنہم کانوا یأتون عائشة بأعلی الوادي ہو وعبید بن عمیر والمسور بن مخرمة وناس کثیر فیوٴمہم أبو عمر و مولی عائشة، وأبو عمر وغلامہا حینئذ لم یعتق․
ইবনে আবি মুলাইকা বর্ণনা করেন, তিনি, মিসওয়ার বিন মাখরামা এবং আরও অনেক মানুষ আয়েশা রাযি. এর কাছে আসেন৷ আয়েশা রাযি. গোলাম আবু আমর ইমামতি করেন৷ (আত তালখিসুল হাবির: ,২/১১০)
এ বর্ণনায় কুরআন দেখে পড়ার কথা নেই এর দ্বারা কাসানি এবং আইনি রাহিমাহুমাল্লাহ এর বক্তব্য শক্তিশালী হয়৷ অর্থাৎ নামাজের বাহিরে তিনি কুরআন দেখে পড়েছেন৷
আলোচনা দীর্ঘ না করে মডারেটদের প্রিয় ব্যক্তি শায়খ নাসির উদ্দিন আলবানি রাহি. এর বক্তব্য তুলে ধরছি৷ তিনি বলেন,
لا نری ذلک، وما ذکر عن ذکوان حادثة عین لاعموم لہا، وبإباحة ذلک لأئمة المساجد یوٴدي بہم إلی ترک تعاہد القرآن والعنایة بحفظہ غیبا وہذا خلاف قولہ صلی اللہ علیہ وسلم: تعاہدوا القرآن فوالذي نفسي بیدہ لہو أشد تفصیا من الإبل في عقلہا، ومعلوم أن للوسائل حکم الغایات کقولہم مالا یقوم الواجب إلا بہ فہو واجب وما یوٴدي إلی معصیة فہو معصیة
অর্থাৎ আমি এটাকে জায়েজ মনে করি না৷ আর জাকওয়ানের ঘটনা একটি বিশেষ অবস্থার, ব্যাপক বিধান নয়৷ এটাকে জায়েজ বললে মসজিদের ইমামরা কুরআন মুখস্থ করা ধীরে ধীরে বাদ দিতে থাকবে৷ আর এটা রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর হাদিস বিরোধী৷ আর শরিয়তে যে কাজ গুনাহের দিকে ধাবিত করে, সেটাও গুনাহ৷ (ফাতহুর রহমান: ১২৫)

মডারেটদের কাজই হলো, কোন এলাকায় শত বছর থেকে চলে আসা স্বীকৃত আমলের বিপরিত ফতোয়া দিয়ে সাধারণ মানুষকে ফিতনায় পতিত করা৷ কিতাবাদির গলি ঘুপচি খুঁজে বিচ্ছিন্ন বা মারজুহ বক্তব্য উল্লেখ করে ঢেলে দেন ফতোয়া৷ বিভ্রান্ত হয় সাধারণ মানুষ৷ মডারেটরা ইসলামের জন্য ক্ষতিকর৷ তাদের ফতোয়া গ্রহণ করার অাগে তাহকিক করবেন৷

লেখক: 
লেখক ও গবেষক, মুহাদ্দিস জামিয়া আবু বকর

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget